আইফোন ৮ (iPhone 8) স্মার্টফোন রিভিউ

আইফোন ৮ (iPhone 8) স্মার্টফোন রিভিউ


আজ আমরা এপল এর আইফোন সিরিজের আইফোন ৮ (iPhone 8) নিয়ে রিভিউ  করবো ।

স্মার্টফোন  দুনিয়ায় এপলের স্মার্টফোন সিরিজ আইফোন এর অবস্থান রয়েছে সবার  শীর্ষে  ।  প্রায় ১০ বছর ধরে এপল তাঁদের আইফোন এর রাজত্ব পরিচালনা করে যাচ্ছে  এবং প্রত্যেকটি নতুন সিরিজের  মাঝেই রয়েছে নতুন নতুন সকল ফিচারসমুহ ।

আইফোন ৮

ক্লাসিক এবং সর্বোচ্চ প্রিমিয়াম কোয়ালিটির আইফোনের মাঝে প্রতিনিয়তই আসছে নতুন ডিজাইন এবং নতুন নতুন সকল ফিচার এবং স্পেসিফিকেশন এর বৈচিত্র্য । আইফোন ৮এর দাম তুলনামূলকভাবে কম রাখবে অ্যাপল।

আইফোন এক্স এবং আইফোন ৮ স্মার্টফোনের মাঝে পার্থক্য কি ?

আশা করি যারা আইফোন সিরিজের আইফোন ৮ ক্রয়ে আগ্রহী তাঁরা প্রয়োজনীয় সকল তথ্য আমাদের আলোচনার মাধ্যমে জানতে পারবেন ।

চলুন তবে প্রথমেই কিছু সুবিধা অসুবিধা দেখে নেই আইফোন ৮ সম্পর্কে –

 

আইফোন ৮ এর সুবিধা সমুহঃ

 

  • অসাধারণ ক্যামেরা পারফর্মেন্স
  • ব্লেজিং ফাস্ট স্পিড
  • কালারফুল ডিসপ্লে কোয়ালিটি
  • ওয়্যারলেস চার্জিং সুবিধা

 

আইফোন ৮ এর অসুবিধা সমুহঃ

  • অন্যান্য ফোনের তুলনায় ডিজাইন একদম সমসাময়িক
  • ব্যাটারি লাইফ আরো ভালো হতে পারতো

 

 

আইফোন ৮ (iPhone 8) এর ডিজাইন  অসাধারণ কিন্তু আপনি যদি বর্তমান সময়ের অন্যান্য ফোনের সাথে এর তুলনা করে তবে এর ডিজাইন বর্তমান সময় অনুযায়ী ঠিক আছে কিন্তু প্রতিনিয়ত আপগ্রেড সব ডিজাইনের স্মার্টফোনের মাঝে এর ডিজাইন আউটডেট হয়ে যাবার সম্ভাবনাই বেশি ।

 

আইফোন ৮-এর দাম

ওএলইডি ডিসপ্লেযুক্ত হাই-অ্যান্ড বা ফ্ল্যাগশিপ আইফোনের মডেলটির দাম ১ হাজার মার্কিন ডলারের বেশি হবে এমন গুঞ্জন রয়েছে। তবে ৬৪ জিবি মডেলের মূল আইফোনটির দাম কিছুটা কম রাখতে পারে মার্কিন প্রযুক্তিপণ্য নির্মাতা প্রতিষ্ঠানটি।

আইফোন ৭ (৩২ জিবি) মূল্য ৭৬,০০০ টাকা, আইফোন ৭ (১২৮ জিবি) মূল্য ৮৭,৬৫০ টাকা এবং আইফোন ৭ (২৫৬ জিবি) মূল্য ৯৯,২৫০ টাকা।

 

চলুন দেখে নেই আইফোন ৮ এর কিছু মুল ফিচার ও স্পেসিফিকেশন ।

 

আইফোন এর স্পেসিফিকেশন ও ফিচার  সমুহঃ

 

ডিসপ্লে—————————-4.7-inch HD True Tone display A11 Bionic

র‍্যাম——————————2GB RAM

ক্যামেরা—————————12-megapixel f/1.8 camera with OIS

সেলফি ক্যামেরা———————8-megapixel selfie camera

আইওএস ভার্সন———————-iOS 11

অন্যান্য——————————TouchID

স্টোরেজ——————————64GB or 256GB storage

ইয়ারপড ফিচার————————Lightning EarPod

আইফোন এর ডিজাইনঃ

 

বাহ্যিক ভাবে আইফোন ৮ (iPhone 8) দেখতে সম্পুর্ন আইফোন ৭ এর মতোই ।  আইফোন ৭ এর মতোই এর মাঝে রয়েছে রাউন্ড এজ , কার্ভড বডি এবং কর্নার ।  রিয়ার সাইড সম্পুর্ন এলুমিনিয়াম এবং গ্লাস প্যানেল সমৃদ্ধ ।

আইফোন ৭ রিলিজ এর তারিখ,ডিজাইন,বৈশিষ্ট্য/

রিয়ার এবং ফ্রন্ট উভয় পাশে করনিং গরিলা গ্লাস প্রোটেকশন থাকার ফলে এটির গ্রিপিং খমতা অসাধারণ এবং দেখতেও অনেক আকর্ষণীয় ।

আইফোন ৮ (1)

তবে কর্নার এর প্রত্যেকটা শেষ অংশে যেখানে মেটাল অর্থাৎ এলুমিনিয়াম সাইড মিশে গিয়েছে সেখানে গ্লাস প্রোটেকশন এর ব্লেডিং আরো নিখুঁত হবার প্রয়োজন ছিলো অনেক  সময়ই সেখানে নখ আটকে যায় , যা সত্যি বিরক্তিকর একটা ব্যপার । তারপরেও এটা হয়তো অনেকের জন্য সমস্যা নয় এবং এর জন্য সম্পুর্ন ডিজাইন একদম বাজে এরকমও কিছু নয় ।

ভালো  প্রোটেকশনের জন্য স্মার্টফোনটির ডিসপ্লের মাঝে রাখা হয়েছে গরিলা গ্লাস ৫ প্রোটেকশন  সিস্টেম এর সুবিধা ।  তারপরেও আমার কাছে মনে হয় স্যামসাং গ্যালাক্সি এস ৮ এর প্রোটেকশন সিস্টেম আরো হয়তো ভালো ।

আইফোন ৮ এর একটি ভালো দিক হলো এটি সম্পুর্ন আইপি৬৭ রেটেড ওয়াটার রেজিস্ট্যান্ট  ফিচার সম্পন্ন ।  এর ব্যাকসাইড এবং ফ্রন্ট সাইড উভয় পাশের গ্লাস এর ফিল অনেক স্মুদ এবং কাজ করে অনেক ফাস্ট  আর এটাও একটা অনেক বড় ভালো সুবিধা ।

প্রায় এক বছর হয়ে গেছে এপল তাঁদের স্মার্টফোন সিরিজের কোন ফোনের মাঝেই আর হেডফোন জ্যাক এর সুবিধা রাখছেনা ।  বর্তমানের আইফোনের সকল সিরিজের মতোই আইফোন ৮ এর মাঝে রয়েছে ওয়্যারলেস হেডফোন সিস্টেম ।

অ্যাপল তাদের উদ্ভাবিত আইফোনের ১০ বছর পূর্তি উপলক্ষে বাজারে এনেছে আইফোন এক্স। আইফোন এক্স (“আইফোন ১০”) অ্যাপল ইনকর্পোরেটেডের নকশা, তৈরি ও বাজারজাত করা স্মার্টফোন। ২০১৭ সালের ১২ সেপ্টেম্বর যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়ায় অবস্থিত অ্যাপল পার্ক ক্যাম্পাসের স্টিভ জবস মিলনায়তনে আইফোন ৮ ও আইফোন ৮ প্লাস স্মার্টফোনের সঙ্গে আইফোন এক্স উন্মোচন করেন অ্যাপলের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা টিম কুক।

 

আইফোন এর ডিসপ্লে এবং স্ক্রিন কোয়ালিটিঃ

 

আইফোন ৮ এর মাঝে রয়েছে ৪.৭ স্ক্রিন  যার রেজুলেশন ৭২০ পিক্সেল ।  যদিও আইফোন ৮ এর ডিসপ্লে এর মাঝে তেমন ভালো লাগার মতো আপগ্রেড আনা হয়নাই তারপরেও এর মাঝে রয়েছে নতুন ট্রু টোন টেকনোলজি ।

আমার মতে, এটি অনেক ভালো একটি ফিচার যা আপনার ডিসপ্লে কালার গুলো সঠিক ভাবে ব্যালেন্স করতে সক্ষম ।

এছাড়াও আইফোন ৮ এর মাঝে রয়েছে নতুন ডলবি ভিশন সাপোর্ট এবং এইচডিআর ১০ ফরম্যাট সাপোর্ট ।  এসব কিছু আপগ্রেড ছাড়া বাকি সব ফিচার রয়েছে আগের মতোই ।

আগের মতোই এর মাঝে এখনো রয়েছে আইপিএস এলসিডি ডিসপ্লে । তবে সব দিক মিলিয়ে এখনো অন্যান্য সকল স্মার্টফোনের চাইতে আইফোনের  ডিসপ্লে কোয়ালিটি আমার কাছে ভালোই লাগে ।

 

আইফোন এর পারফর্মেন্স এবং সফটওয়্যারঃ

 

আইফোন ৮ এর মাঝে  রয়েছে এ১১ বায়োনিক প্রসেসর যা এখন পর্যন্ত আইফোন  সিরিজের সকল  স্মার্টফোনের চাইতে সেরা । আইওএস ভার্সন রয়েছে আইওএস ১১ । আইফোন ৮ এবং আইফোন ৮ প্লাস দুটি মডেলের মাঝেই রয়েছে আইফোন সিরিজের এখন পর্যন্ত সবচাইতে সেরা প্রসেসর বায়োনিক প্রসেসর ও চিপসেট ।

আইফোন ৮ এর মাঝে সবচাইতে ভালো পারফর্মেন্স  নিশ্চিত  করার জন্য স্মার্টফোনের  মাঝে  রয়েছে  ২ গিগবাইট র‍্যাম এবং আইফোন ৮ প্লাস এর মাঝে রয়েছে ৩ গিগাবাইট র‍্যাম ।

আইফোন ৮ এর বায়োনিক প্রসেসর সিক্স কোর সম্পন্ন ।  নতুন কিছু  ভালো লাগার মতো আপগ্রেডেশন এর মাঝে আপনার প্রথমেই হয়তো এর ফ্রন্ট ফেসিং স্পিকার গুলোর  পারফরমেন্স ভাল লাগতে পারে ।  এছারাও এর কল কোয়ালিটি  এবং ওয়াইফাই সিস্টেম ও অসাধারণ রকমের ভালো ।

 

আইফোন এর ক্যামেরাঃ

 

আইফোন ৮ এর মাঝে অন্যান্য সকল স্পেসিফিকেশন এর মাঝে ব্যাপক পরিবর্তন না আসলেও এর ক্যামেরা ফিচার গুলো আমার মতে অনেক আপগ্রেড করা হয়েছে ।  এর ১২ মেগাপিক্সেল সিঙ্গেল লেন্স ক্যামেরা ফিচার আপনার ভালো লাগবেই আর তার সাথে যুক্ত রয়েছে অপটিক্যাল ইমেজ স্ট্যাবিলাইজেশন সুবিধা ।

ক্যামেরাটি আসলেই এফ/১.৮ অ্যাপারচার পেয়েছে আইফোন ৭ এর মতোই। তবে এর লেন্স আরো বড়। ফলে আরো বেশি পিক্সেলের ছবি উঠবে এতে।

আইফোন ৮ এর মাধ্যমে ক্যাপচার করা ইমেজ গুলো অনেক বেশি ডিটেইলড এবং কালার ও আসে অনেক বাস্তব নির্ভর ।  আপনি চাইলেই ইচ্ছেমতো কালার স্যাচুরেটেড করে নিতে পারবেন ।

এর ক্যাপচার করা ইমেজ গুলোর মাঝে কালার কম্বিনেশন যেমন আসে অনেক ভালো তেমনি আপনি অনেক ভালো ফোকাস করতে পারবেন যখন আপনার কিছু ক্লোজ শট এর প্রয়োজন পরবে ।

লো – লাইট এবং সুপার ব্রাইট যেকোন মোডের মাধ্যমে ইমেজ ক্যাপচার হবে আরো অসাধারণ।  ল্যান্ডস্ক্যাপ থেকে পোট্রেইট মোড সকল ইমেজ ক্যাপচার হয় একদম নিখুঁত ।

ক্যামেরার মাঝে রয়েছে  নতুন অটো এইচডিআর মোড  যদিও আপনি এটি সুইচ অফ করেও ক্যাপচার করতে পারবেন ।  ভিডিও ধারন  খেত্রেও পাচ্ছেন  কিছু নতুন সুবিধা।

আপনি চাইলেই আপনার আইফোন ৮ এর মাধ্যমে ২৪ এফপিএস ফ্রেম রেটে ৪কে ভিডিও ক্যাপচার করে নিতে পারবেন খুব সহজেই।  জুমিং এবং ব্রাইটনেস কনট্রোল এর জন্যও রয়েছে অসাধারণ সকল ফিচার।

 

আইফোন এর ব্যাটারি লাইফ

 

ব্যাটারি লাইফ নিয়ে আমি আইফোন ৭ এর প্রতি  একদম সন্তুষ্ট নেই । স্মার্টফোনের মাঝে থাকা আকর্ষণীয় সকল ফিচারগুলো নিজের মতো করে ব্যবহার করার আগেই যদি আপনার স্মার্টফোনের ব্যাটারি লো হয়ে যায় তাহলে ব্যাপারটা সত্যি অনেক বিরক্তিকর লাগে । আমার মতে , আইফোন ৭  এর ব্যাটারি লাইফ আরো অনেক বাড়ানোর প্রয়োজন ছিলো ।

আইফোন ৭ থেকেও ছোট ব্যাটারি রয়েছে আইফোন ৮ এর মাঝে ।  যা একটু আকর্ষণীয় বটে এবং আইফোন  ৭ এর সাথে তুলনা করলে আইফোন ৮ এর ব্যাটারি অনেকটাই ভালো রাখা হয়েছে তবে আরো ভালো সাপোর্ট হয়তোবা এপল দিতে পারতো আইফোন ৮ এর মাঝে ।

পুরো একদিন আপনি ইচ্ছেমতো  ইমেজ ক্যাপচার ,  মিউজিক প্লে সহ ওয়েব ব্রাউজিং করতে পারবেন নিশ্চিন্তে ।  আইফোন ৮ এর মাঝে দেয়া হয়েছে লাইটেনিং ক্যাবল যা দেখতে  আকর্ষণীয় এবং চার্জ হয় সুপার ফাস্ট ।

আপনি এক ঘন্টায় ০ থেকে ৮০% চার্জ পেতে সক্ষম হবেন আইফোন ৮ এর মাঝে ।  এছাড়াও আইফোন ৮ কিউআই ওয়্যারলেস চার্জিং সাপোর্ট করে ।

 

ক্রয় নির্দেশনা হিসেবে আমি বলবো আপনি চাইলেই এটি ক্রয় করতে পারেন কারণ আইফোন ৮ আইফোন ৭ থেকে অনেক বেশি কিছু আপগ্রেড সম্পন্ন না হলেও আইফোন থেকে  আলাদা এবং অনেকটাই বেশি স্মার্ট ফিচার সম্পন্ন । তবে যেহেতু সামনে আইফোন এক্স আসছে সেক্ষেত্রে আপনি ক্রয় এর আগে একবার ভেবে দেখতে পারেন ।

Comments

comments

Join the discussion

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।