দ্রুত গতির বাইক হিরো এচিভার ১৫০সিসি (New Hero Achiever 150 cc)

দ্রুত গতির বাইক হিরো এচিভার ১৫০সিসি (New Hero Achiever 150 cc)

 

হিরো এচিভার ১৫০সিসি (New Hero Achiever 150 cc) বাইকটির পরিচয়

নতুন কিছু আপগ্রেড নিয়ে এচিভার হল এ বছর হিরোর লঞ্চ করা ৩য় মটরসাইকেল।

বাইকটি অবশ্য Splendor 110 iSmart  এর মত পুরোপুরি নতুন নয় তবে মান উন্নয়নের জন্য এর মেকানিকালি কিছু পরিবর্তন আনা হয়েছে সাথে সৌন্দর্যও বাড়ানো হয়েছে।

হিরো নতুন এচিভার ১৫০ বাইকটি বাজারে লঞ্চ করেছে মুলত এর ওভারঅল মার্কেট শেয়ার বাড়ানোর জন্য যা বর্তমানে রয়েছে বাজাজের পালসার ১৫০ এর দখলে।

প্রস্তুতকারকরা নতুন এচিভার ১৫০ বাইকটির মেকানিকালি কিছু পরিবর্তন আনার পাশাপাশি সৌন্দর্যও বাড়িয়েছে। এই সেগমেন্টের মটরসাইকেল গুলোর মধ্যে সচরাচর দেখা যায় না এমন কিছু ফিচার এর সাথে বাইক প্রেমীদের পরিচয় ঘটাতে চলেছে হিরো।

 দ্রুত গতির বাইক হিরো এচিভার ১৫০সিসি (New Hero Achiever 150 cc)

বাইকটির আউটলুক

নতুন এচিভার ১৫০ এর আউটগোইং মডেলের চেয়ে ভালো দেখতে। নতুন এচিভারের ওভারঅল স্টাইলিং এ হিরো যথেষ্ট সচেতনতার পরিচয় দিয়েছে বলতে হয়। ডিজাইনাররা বাইকটির ডিজাইন এমনভাবে করেছে যে অল্প বয়সী বাইকপ্রেমীদের আকর্ষণের পাশাপাশি মধ্যবয়সী ব্যবহার কারীদেরও পছন্দ হবে।

বাইকটির সাইড প্রোফাইল বেশ বাল্কি করা হয়েছে। যদিও এর রিয়ার সাইড কিছুটা হোন্ডা ইউনিকর্ন ১৫০ এর মত দেখতে তারপরও বড় বডি প্যানেলের কারনে বেশ চমৎকার হয়েছে দেখতে।

যাইহোক ওভারঅল বাইকটির সাথে এর রিয়ার সাইড খুব একটা মানায় না, এটির কিছু সময় নষ্ট করে হলেও রি-ডিজাইন জরুরী, নইলে বলা যায় এই অংশটুকু নতুন এচিভারকে বাজারে পিছিয়ে দিতে পারে।

যদিও নতুন এচিভার ১৫০ এর বডি প্যানেলের প্রাই সবটাই নতুন, তারপরও কিছু অংশ নেয়া হয়েছে হিরোর পুরোনো মডেল গুলো থেকে যেমনঃ এলোই হুইলস, ফুট ব্রেক লিভার, ব্রেকিং সিস্টেম ইত্যাদি পুরোনো মডেলের ডিজাইন থেকে নেয়া।

 

হিরো এচিভার ১৫০ এর পারফরমেন্স

হিরো এচিভার এর আপডেট ১৫০ সিসি ইঞ্জিন বিএস-আইভি(BSIV) এর মত। এই ইঞ্জিনটি পিক টর্কে ৮০০০আরপিএম এ ১২.৮এনএম পাওয়ার তুলতে পারে এবং সরবোচ্চ ৮০০০আরপিএম এ ১৩.৪এনএম স্থায়ী হতে পারে।

খেয়াল করলে দেখবেন যে এই ফিগারগুলো পুরোই আউটগোইং মডেলের মতই।হিরো তার ইঞ্জিনকে রি-টিউন করেছে যাতে নিম্ন গতিতেও এটি আরো বেশি টর্ক বাড়াতে পারে। এর রয়েছে ফাইভ স্পীড গীয়ার বক্স যা খুব স্মুথ চলে।

হিরো দাবী করে যে এই বাইকটি ৫০কেএমপিএল ফুয়েল সাশ্রয় করতে পারে। নতুন হিরো এচিভার ১৫০ বিএস-আইভি মটরসাইকেল হওয়ার কারনে ওয়ার্ল্ডওয়াইড হারমোনাইজড মটরসাইকেল টেস্ট (WMTC) এ সহজেই পার করে ফেলতে পেরেছে। এই টেস্ট এ বাইকের উচ্চতর আরপিএমএস টেস্ট করা হয়।

 

হিরো এচিভার ১৫০ এর ফিচার সমুহ

এই সেগমেন্টের অন্যন্য বাইক গুলোতে নেই এমন ফিচার নিয়ে হাজির হয়েছে নতুন

হিরো এচিভার ১৫০। সামনের বছরে অল টাইম হেডল্যাম্প (AHO) সকল ব্রান্ডের বাইকের জন্য বাধ্যতামুলক ফিচার করা হয়েছে কিন্তু আইনটি বাস্তবায়নের আগেই হিরো নতুন এচিভার ১৫০ এর মাধ্যমে ফিচারটি বাজারে এনেছে।

বাইকটিতে রয়েছে আই৩এস সিস্টেম (integrated start-stop system)।এই ফিচারটির সেন্সর এমনভাবে কাজ করে যে বাইকটি যদি থেমে থাকে তাহোলে ৫ সেকেন্ডের মধ্যে ইঞ্জিন স্বয়ংক্রিয় ভাবে বন্ধ হয়ে যাবে। বাংলাদেশের ট্রাফিকের জন্য আদর্শ বলতে হবে। আবারো ইঞ্জিন স্টার্ট করার জন্য ক্লাচে টান দিলেই হবে।

এই ফিচারটি ফুয়েল সেভ করতে সাহায্য করে।

নতুন হিরো এচিভার ১৫০ তে স্ট্যান্ডার্ড মানের টিউবলেস টায়ার রয়েছে। এর ইন্সট্রুমেন্ট গুলোর সবই বলতে গেলে নতুন আর এখন তো সাথে সাইড-স্ট্যান্ড ইন্ডিকেটর রয়েছে।

নতুন i3s টেকনোলজি সমৃদ্ধ HERO ACHIEVER 150cc মোটরসাইকেল বাংলাদেশে এসেছে সাশ্রয়ী দামে।

 

 

হিরো এচিভার ১৫০ এর রাইডিং স্ট্যাটাস

ভাল রাস্তার সীমাবধ্য যায়গায়  বাইকের রাইডিং কোয়ালিটি কেমন তা বোঝার উপায় থাকে না, কিন্তু সম্পূর্ণ বাজে রাস্তায় চালিয়ে যে ফলাফল পাওয়া গেছে তাতে এর রাইডিং কোয়ালিটি বেশ ভালোয় বলতে হয়।

আরামদায়ক লম্বা সীটের সাথে নতুন করে সাজানো রাইডিং পজিশনও বেশ চমৎকার হয়েছে।বাইকটির হ্যান্ডেলিং ও সহজ বলেই মনে হয়েছে। ১৫০সিসি এর আপডেট ইঞ্জিন খুব স্মুথ কাজ করে এবং এর লো-ইন্ড টর্কও বেশ ভালো মানের।

কোন প্রকার সমস্যা ছাড়াই বাইকটির ইঞ্জিন ফিফথ গীয়ারে ৩০ কিলোমিটার পার আওয়ার চলতে সক্ষম এমনকি রাইডার এর বেশি ওজনের ক্ষেত্রেও ভালো সারভিস দিতে দেখা গেছে। আগেই বলেছি বাইকটির ব্রেকের পারফর্মেন্সও প্রশংসনীয়।

ফ্রন্টের ব্রেক লিভারেরও তেমন কোন খারাপ রিপোর্ট পাওয়া যায় নি। যায়হোক স্বীকার করতেই হবে এর উচ্চ মানের পাওয়ার আর আরামদায়ক সীটের সাথে বাইকটির রিয়ার সাইড সেটআপ সত্যিই দারুন পারফরমেন্স দেয়।

হিরো এচিভার ১৫০(Hero Achiever 150) বনাম বাজাজ ভি ১৫(Bajaj V15): কোনটি ভাল ?

 

নতুন হিরো এচিভার ১৫০ এর দাম

নতুন হিরো এচিভার ১৫০ এর ড্রাম ব্রেক ভ্যারিয়েন্ট টি বাংলাদেশের বিভিন্ন শো-রুম গুলোতে পাবেন 135,500 টাকায় একই সাথে এর ডিস্ক ব্রেক ভ্যারিয়েন্ট পাবেন কিছু বেশি  টাকায়। দামের দিক দিয়ে নতুন এচিভারকে জনপ্রিয় বাইক বাজাজ ভি১৫ এবং ইয়ামাহা এসয়ার-আরআর এর সাথে প্রতিযোগিতা করতে হচ্ছে।

   Hero Achiever Specifications

   Engine

  • Engine Cc149.1 cc
  • No Of Cylinder1
  • Max Power13.4 bhp @ 8000 rpm
  • Max Torque12.8 Nm @ 5000 rpm
  • Valves Per Cylinder2
  • Fuel DeliveryCarburetor
  • Cooling SystemAir Cooled
  • Starting MechanismSelf / Kick Start

  Transmission

  • No. Of Gears5
  • ClutchMulti-plate, Wet type

   Wheel and Tyres

  • Wheel Size18 inches
  • Wheel TypeAlloy Wheels
  • Front Tyre80/100-18 47P (Tubeless)
  • Rear Tyre80/100-18 54P (Tubeless)

   Dimension and Weight

  • Kerb Weight139 kg
  • Length2060 mm
  • Width763 mm
  • Height1086 mm
  • Wheelbase1290 mm
  • Ground Clearance160 mm
  • Seat Height800 mm

   Chassis and Suspension

  • Chassis TypeTubular, Diamond Type
  • Front SuspensionTelescopic Hydraulic Shock Absorbers
  • Rear SuspensionSwing Arm with adjustable Shock Absorber

  Electricals

  • Battery12V – 5Ah Maintenance Free
  • Headlight12V – 35W/35W – Halogen Bulb(MFR)
  • Tail Light12V – 5W – MFR

 

 

Comments

comments

Join the discussion

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।