প্রবাস থেকে বিকাশ : বিকাশ একাউন্টের মাধ্যমে দ্রুত অর্থপ্রেরণ

বর্তমানে মোবাইল মানি কম্পানীগুলো মাস্টার কার্ড এবং ওয়েস্টার্ন ইউনিয়নের মতো সুবিধা আনার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে যাতে করে বিকাশ একাউন্ট ব্যবহারকারীরা (প্রবাস থেকে বিকাশ) এখন বিদেশ থেকে পাঠানো টাকা তাদের বিকাশ একাউন্টের মাধ্যমে দ্রুত অর্থ আদান-প্রদান করতে পারেন। ঢাকার সোনারগাঁ হোটেলে মাস্টের কার্ড (একটি গ্লোবাল টেকনোলজি কোম্পানি) , ওয়েস্টার্ন ইউনিয়ন (একটি ইন্টারন্যাশনাল পেমেন্ট সার্ভিস কোম্পানি) এবং বিকাশ একত্রে আন্তঃসীমান্তবর্তী অর্থ/রেমিটেন্স ট্রান্সফারের সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

Remittance_bikash-productreviewbd

 প্রকল্পটি অবিলম্বে বাস্তবায়নের জন্য নানা পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে ফলে বাংলাদেশের বাইশ লাখ(২২,০০,০০০) বিকাশ একাউন্ট ব্যবহারকারী খুব দ্রুত এই সুবিধাটি পেতে যাচ্ছে। “এটি বাংলাদেশী এবং প্রবাসীদের জন্য অনেক সুবিধা বয়ে আনবে”, বললেন বিকাশের প্রধান নির্বাহী, কামাল কাদির।

আপনার যদি এখনো বিকাশ একাউন্ট খোলা না থাকে তাহলে এখনই বিকাশ একাউন্ট খুলে নিতে পারেন। বিকাশ একাউন্ট খুলতে কি কি লাগে তা আপনি নিকটতস্থ বিকাশ এজেন্ট থেকে যেনে নিতে পারবেন।

দুই প্রকারের বিকাশ একাউন্ট খোলা যায়। একটি বিকাশ পার্সনাল ও অন্যটি বিকাশ এজেন্ট।

বাংলাদেশ বিশ্বের আন্তর্জাতিক রেমিটেন্স অর্জনে অষ্টমতম দেশ। গত অর্থ বছরের হিসাব অনুসারে বাংলাদেশ শুধুমাত্র আন্তর্জাতিক রেমিটেন্সেই আয় করেছে পনেরশ একত্রিশ বিলিয়ন ইউএস ডলার । কম্পানিগুলোর বক্তব্য অনুযায়ী এটি একটি জয়েন্ট স্টেটমেন্ট যা কিনা লাখ লাখ মানুষের অর্থ আদান- প্রদানে এনে দিবে আরাম ও বাড়তি নিরাপত্তা। এর ফলে প্রবাসীরা খুব সহজেই তাদের প্রিয়জনের কাছে অর্থ পেরন করতে পারবে। আর এই অভূতপূর্ব সুবিধাটি সম্ভব হয়েছে শুধুমাত্র বিকাশের কারণে। বিকাশ বাংলাদেশে ২০১১ সাল থেকে মানুষের ঘড়ে ঘড়ে পৌঁছিয়ে দিচ্ছে এর সুবিধা।

বিকাশ বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম মোবাইল মানি কোম্পানি, কেনিয়ার ভোডাফোন এর এম-পেসার পরেই এর স্থান। এটি বাংলাদেশের লাখ লাখ মানুষের অর্থ আদান-প্রদানকে সহজতর করতে সক্ষম হয়েছে, বিশেষ করে যারা অন্য কোন ব্যাংকিং সেবা নিতে ব্যর্থ।

bikash-product-reviewbd

 এখন ওয়েস্টার্ন ইউনিয়নের বিশ্বস্ত নেটওয়ার্কের মাধ্যমে বিশ্বের যে কোন স্থান থেকে অর্থ পাঠাতে পারবেন যা চব্বিশ (২৪) ঘণ্টার মধ্যে গ্রাহকের বিকাশ একাউন্টে গৃহীত হবে। এবং বাড়িতে বসেই আপনি আপনার বিকাশ একাউন্ট চেক করতে পারবেন।

প্রক্রিয়াটি বিকাশ একাউন্ট খোলার মতোই সহজ-

 প্রথমে আপনাকে ওয়েস্টার্ন ইউনিয়নের রেফারেন্স নাম্বারটি প্রবেশ করাতে হবে।

 তারপর টাকার পরিমাণ ও আপনার ব্যক্তিগত আইডিন্টিফিকেশন নাম্বার দিতে হবে।

 মাস্টারকার্ড পেমেন্ট টেকনোলজির মাধ্যমে আপনার আবেদনটি প্রক্রিয়াধীন হবে।

 অতঃপর ফাণ্ড আপনার বিকাশ একাউন্টে জমা হবে।

 প্রক্রিয়াটি সঠিক ভাবে সম্পন্ন হয়েছে কিনা জানতে আপনার বিকাশ একাউন্ট চেক করে নিতে পারেন।

বিকাশ একাউন্ট ব্যবহারকারী সর্বোচ্চ কত বার সেবাটি নিতে পারবে ?

সেবাটি সিঙ্গেল রেমিটেন্স ট্রানজেকশনে সর্বোচ্চ পঁয়ত্রিশ হাজার (৳৩৫,০০০) টাকা অর্থাৎ পাঁচশ ইউএস ডলার ($৫০০) পর্যন্ত লেনদেন করা সম্ভব।

একজন বিকাশ একাউন্ট ব্যবহারকারী দিনে পাঁচ বার সেবাটি নিতে পারবে এবং সর্বমোট এক লাখ পনের হাজার (৳১১৫,০০০) টাকা লেনদেন করতে পারবে। এবং মাসে বিশবার (২০) ট্রানজেকশনে সর্বমোট এক লাখ পঞ্চাশ হাজার (৳১১৫,০০০) টাকা লেনদেন করতে পারবেন। ট্রানজেকশন প্রক্রিয়াটি সম্পন্ন হওয়ার পর, সাথে সাথেই টাকা উত্তোলন করতে পারবেন।

আপনি ইচ্ছা করলে বাংলাদেশের যে কোন স্থান থেকে বিকাশ এজেন্টের (মোট ১২০,০০০জন) মাধ্যমে টাকা উত্তোলন করতে পারবেন, অথবা পারসন টু পারসন, মোবাইল বিল পরিশোধ এবং শপিং এর ক্ষেত্রে আপনার বিকাশ ব্যলেন্স ব্যবহার করতে পারেন। আপনি চাইলে বিকাশ একাউন্টে অর্থ সঞ্চয় করে আমানতের উপর ইন্টারেস্ট পেতে পারেন।

মিথু ড্রাইভার, মাস্টারকার্ডের বিশ্বব্যাপী পণ্য এবং সমাধানের গ্রুপ নির্বাহী বলেন, “এই পার্টনারশিপ আগামী ২০২০ সালের মধ্যে পঞ্চাশ কোটি (৫০০,০০০০০০০) মানুষের মধ্যে সহজে ব্যবহার যোগ্য বৈশ্বিক বিনিয়োগের প্রতিশ্রুতি অর্জনের আরেকটি পদক্ষেপ গ্রহন করবে। ”

তিনি আরও বলেন, “শুধুমাত্র বাংলাদেশ নয় সারা বিশ্বে মোবাইলের ব্যাপক ব্যবহার, এর মাধ্যমে অর্থ আদান- প্রদানের একটি সহজ মাধ্যমে পরিণত করতে সক্ষম হয়েছে।”

আফ্রিকা মিডিল ইস্ট,এশিয়া প্যাসিফিক ও পূর্ব ইউরোপের ওয়েস্টার্ন ইউনিয়নের সভাপতি, জিয়ান ক্লাউড ফারাহ বললেন, “ওয়েস্টার্ন ইউনিয়ন তাদের ক্রস-বর্ডার ফিনটেক প্ল্যাটফর্ম দক্ষ ও নির্ভরযোগ্য আদান-প্রদানের জন্য নিয়ে এসেছে লিভারেজ প্রযুক্তি, নিয়ন্ত্রক সম্মতি, এবং এন্টি মানি লন্ডারিং অবকাঠামো।”

westernunion-productreviewd-bikash

তিনি আরও বলেন, “মোবাইল ফোনের মাধ্যমে আন্তর্জাতিক অর্থ স্থানান্তর সক্ষম হলে ব্যাংক একাউন্টের চেয়ে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে আর্থিক লেনদেন ব্যাপকভাবে বৃদ্ধি পাবে।” ব্র্যাক ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক, সেলিম আরএফ হোসেন বলেন, “আমাদের এই পার্টনারসিপের মূল লক্ষ্য হল, গ্রাহকরা যেন তাদের আঙ্গুলের স্পর্শেই যে কোন স্থান থেকে অর্থ লেনদেন করতে পারে।”

ওয়েস্টার্ন ইউনিয়ন নেটওয়ার্ক এত বড় যে, এটি বিশ্বের দুইশটি (২০০) দেশের পাঁচ লাখ (৫০০,০০০) এজেন্ট কর্তৃক ডিজিটাল চ্যানেল যেমন WU.com অথবা ব্যাংক একাউন্ট ভিত্তিক অর্থ স্থানান্তর করে থাকে। মাস্টারকার্ড তার উদ্ভাবিত মাস্টারকার্ড সেন্ড প্লাটফর্ম থেকে দিচ্ছে রিয়েল-টাইম ব্যাকএন্ড-এর সুবিধা। বিকাশ ব্র্যাক ব্যাংকের সাথে ইন্টারন্যাশনাল ফিন্যান্স করপোরেশন এবং বিল ও মেলিন্ডা গেটস ফাউন্ডেশনের বদৌলতে মার্কিন অর্থের একটি জয়েন্টভেঞ্চারে মিলিত হয়েছে।

Comments

comments

Join the discussion

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।