ল্যাকমি আইকনিক কাজল রিভিউ

ল্যাকমি আইকনিক কাজল রিভিউ

চোখের কাজল ভালোবাসেনা এমন মেয়ে আমার মনে হয় খুব কমই আছে । মেয়েদের জন্য সবসময়ের পছন্দনীয় একটি মেকআপ উপকরণ হিসেবে কাজল অনেক জনপ্রিয় । আজকে আমাদের আয়োজন ল্যাকমি আইকনিক কাজল রিভিউ নিয়ে। মেয়েদের চোখের সৌন্দর্য এবং আকর্ষণীয়তা বৃদ্ধির জন্য এবার  মেকআপ উপকরণ তৈরি প্রতিষ্ঠান ল্যাকমি নিয়ে এলো নতুন “ ল্যাকমি আইকনিক কাজল Lakme Eyeconic Kajal” ।

Lakme-Eyeconic-Kajal-productreviewbd

বাজারে বিদ্যমান অনেক কাজলের ব্র্যান্ড থাকা সত্ত্বেও  আপ্নারা নিশ্চয়ই জানেন সব কাজল কিন্তু ঠিকঠাক ভাবে ব্যবহার করা যায়না ।চোখে কাজল দেয়ার নিয়ম মেনে চললে ও অনেক সময় কাজল লেপটে যায়।

বাংলাদেশ এর মেয়েদের  রূপচর্চার এবং নিজেকে সাজিয়ে গুছিয়ে উপস্থাপনের জন্য অনেক আগেই চোখের মাঝে কাজল এর ব্যবহার করে আসছে ।চলুন তবে দেখে নেই, ১০টি সেরা চোখের কাজল যেগুলো বাংলাদেশে পাওয়া যায় ।

সবচাইতে বড় সমস্যা আমার মনে হয় যা প্রত্যেক কাজল ব্যবহারকারী ভোগ করে থাকেন আর সেটা হল কাজল লেপটে যায় কিছুক্ষণ সময়ের পর ।

আর তখন নিজেকে কেমন দেখা যায় তা নিজেরাই ভালো জানেন । ল্যাকমি আইকনিক কাজল এই ধরণের সমস্যার সমাধান নিয়ে এসেছে ,  তাদের মতে এই কাজল আপনাকে টানা ১০ ঘন্টা চোখের সৌন্দর্য  ধরে রাখতে সাহায্য করে থাকে ।

চোখের কাজল

এছাড়াও তাঁদের মতে কাজলটি সম্পূর্ণ ওয়াটারপ্রুফ অর্থাৎ পানিতে ভিজে লেপটে যাবেনা । তাই আপনি কাজল ব্যবহার করার পরেও মুখ ধোয়ার প্রয়োজন অনুভব করলে মুখ ধুতে পারবেন নিশ্চিন্তে ।

এছাড়াও যাদের কাজল ব্যবহারে এলার্জি জনিত সমস্যা অনুভব হয় তাঁদের জন্য সুখবর এই যে , ল্যাকমি আইকনিক কাজল ব্যবহার করার ফলে আপনার কোন এলার্জি ,র‍্যাশ জনিত সমস্যায় ভুগতে হবেনা ।

এবং সম্পূর্ণ ডার্মাটোলজিস্ট দ্বারা পরীক্ষিত যা চোখের মাঝে ব্যবহারের জন্য নিরাপদ ।

ল্যাকমি আইকনিক কাজলের কিছু ফিচারঃ

 

  • লেপটে যায়না ।
  • বিশেষজ্ঞ ডার্মাটোলজিস্ট দ্বারা সম্পূর্ণ পরীক্ষিত ।
  • পানি নিরোধক ।
  • সৌন্দর্য ধরে রাখে প্রায় ১০ ঘন্টার মত ।
  • টুইস্ট মাপ ফর্মুলা দ্বারা উৎপাদিত ।

 

ল্যাকমি আইকনিক কাজল এর প্যাকেজিং ব্যবস্থাঃ

কাজলটি সম্পূর্ণ টুইস্ট প্যাকেট সিস্টেম এর মাধ্যমে প্যাকেটজাত করা হয়েছে , নীল রং এর স্ট্রিপ এর ভেতর এটি থাকে যা দেখতে এবং আকারে সম্পূর্ণ একটি কলমের মত ফলে আপনার পার্টস কিংবা সাইডব্যাগ এর মাঝে করে বহন করতে পারবেন যেকোন জায়গায় ।

ল্যাকমি আইকনিক কাজল রিভিউ

তবে কি কি উপকরণ দিয়ে কাজল প্রস্তুত করা হয়েছে তা ল্যাকমি প্রোডাক্ট এর গায়ে উল্ল্যেখ করেনি ।

ল্যাকমি আইকনিক কাজল এর  মেয়াদ কিন্তু মাত্র ম্যানুফেকচার  অর্থাৎ বাজারজাত করণের ৩০ মাস এর ভেতর ব্যবহার করার জন্য উপযোগী ।

ল্যাকমি আইকনিক কাজল Lakme Eyeconic Kajal” এর দামঃ

বাংলাদেশে ল্যাকমি আইকনিক কাজল এর দাম ৩০০-৪৫০ টাকার মাঝে আপনি বিভিন্ন কসমেটিক্স পন্য বিক্রয় করে এমন দোকানে খোঁজ নিলেই পেতে  পারেন ।

ল্যাকমি আইকনিক কাজল Lakme Eyeconic Kajal” এর ভাল দিকঃ

 

  • লেপটে যায়না
  • ১০ ঘন্টা সময় ধরে থাকে
  • চোখের মাঝে জ্বালাপোড়া করেনা কিংবা ক্ষতি করেনা

ল্যাকমি আইকনিক কাজল Lakme Eyeconic Kajal” এর খারাপ দিকঃ

এই প্রোডাক্ট এর অসুবিধা হল সচরাচর পাওয়া যায় না ।

দাম বেশী।
Rating:

 


ল্যাকমি ব্ল্যাক ( কালো ) আইকনিক কাজল এর রিভিউ

 

একটা নীল এবং কালো রং এর মিশ্রণ যুক্ত  টুইস্ট পেন্সিল প্যাকেট এর মাঝে আপনি এটি দেখতে পাবেন ।

এটা অনেক সুন্দর  রং এর শেড দিবে আপনার চোখে যা আপনার চোখকে সবার কাছে করে তুলবে অনেক বেশি আকর্ষণীয় ।

lakme eyconic kajal green review

Image source:Indian Beauty Forever

ভিজে গেলেও সমস্যা হয়না তাই অনেকেই যারা মিডিয়াতে কাজ করেন এবং অনেক সময় ভিজে বৃষ্টির মাঝেও হালকা সাজে আপনাকে উপস্থাপন হতে হয় আপনারা কিন্তু এটি অবশ্যই ব্যবহার করতে পারেন ।

মাত্র একবার  স্কিনের মাঝে টেনেই আপনি ভালো রং এর লাইন পাবেন চাইলে ডাবল লাইন করে ব্যবহার করতে পারেন । তবে এটি অনেক সরু হবার ফলে চিকন লাইন আঁকতে গিয়ে ভেঙ্গে যাবার সম্ভাবনা  থাকে ।

চোখের উপরের এবং নিচের অংশে খুব সহজেই ব্যবহার করা যায় অবশ্য এবং সহজে লেপটে যায়না সবচাইতে বড় গুণ এটার এটাই ।

আপনার কোন এলার্জি হবেনা আমি নিজেও অনুভব করিনি চোখের মাঝে কোন রকম অস্বস্তিকর ভাব এর ।

তারপরেও আপনারা  সাবধানতা বজায় রেখে ব্যবহার করবেন , কারন চোখ আমাদের একটা অতি গুরুত্বপূর্ণ অংগ ।

 

ল্যাকমি আইকনিক কাজল কি শুধুই কালো ? অন্যান্য কোন রং এর কাজল নেই   মেকআপের ধরণ অনুযায়ী ?

 

ল্যাকমি আইকনিক কাজল –  সাদা

হ্যাঁ  ল্যাকমি আইকনিক কাজলের অন্যান্য রং এর মাঝে সাদা রং এর একটি কাজল রয়েছে । সিলভার কালারের কিছুটা শেড রয়েছে ভিন্নতা খুঁজে নেবার জন্য । এটার  টেক্সচার আপনাকে অনেকটা মুক্তার মত শেড এর ফিনিশিং দিবে চোখের মাঝে । এবং সম্পূর্ণ সফট ।

মেকআপের সময়  চোখের মাঝে যখন লাইন ড্রয়িং করা হয় তখন এটা আপনাকে এই কাজটা সহজ করে দিবে ল্যাকমি আইকনিক কাজল কারন এটি সহজেই মিশে যায় এবং নরম ।

মাত্র দুই থেকে তিন বার দাগ টানলেই দেখবেন সুন্দর আপনার চোখে কাজল এর সৌন্দর্য ফুটে উঠেছে ।

পানি নিরোধক এটা ঠিক আছে কিন্তু আমি ব্যবহার করার পর ৫ থেকে ৬ ঘন্টা সময় এর কার্যকরী ক্ষমতা লক্ষ্য করেছি ।

আমার মনে হয় যারা চোখের মাঝে ধুসর কিংবা একটু দুধ সাদা মুক্তার মত  শেড চায় তাঁদের জন্য এটা অনেক পছন্দের একটা রং এর কাজল হতে পারে ।

ল্যাকমি আইকনিক কাজল – ধূসর

অনেকের প্রিয়  সম্পূর্ণ ধূসর বর্ণের এই কাজলটি অন্যান্য গুলোর মতই ৪ থেকে মাত্র ৫ ঘন্টা সময় ধরে আপনাকে সুন্দর একটা  ধূসর শেড দিবে ।

খুব সুন্দর করে এটি ওয়াটারলাইনের মাঝে মিশে যায় এবং আপনার সৌন্দর্য বর্ধনে অতুলনীয় একটি শেড ।

 

ল্যাকমি আইকনিক কাজল – নীল

অন্যান্য কাজলের মতই এর টেক্সচার ও আপনাকে মসৃণ এবং নিখুঁত একটি লুক দিবে । অন্যান্য সাধারণ কাজল এর মত এটা লেপটে যাবেনা এবং আপনার স্কিন অর্থাৎ ত্বক এর রং এর সাথে স্বাভাবিক ভাবে মিশে যেতে এবং ম্যাচ করতে সক্ষম ।

মাত্র এক বারেই আপনি এর সৌন্দর্য উপভোগ করতে পারবেন আর যদি কিছুটা আলাদা রকম  শেড চান আপনি তবে দুই লেয়ার করে ব্যবহার করতে  পারেন ।

 

ল্যাকমি আইকনিক কাজল – সবুজ

 

এটা সম্পূর্ণ   ডার্ক  গ্রিন অর্থাৎ গাড় সবুজ রং এর শেড আপনাকে দিবে । এটাও সম্পূর্ণ স্কিনের সাথে মানানসই ভাবে ব্যবহার করা যায় এবং মিশে যায় ।

এটা ফেড অর্থাৎ লেপটে গেলেও কোন দাগ রাখেনা আলাদা ।  এটা অনেকটাই কালো বর্ণের দেখাবে খুব কাছ থেকে লক্ষ্য করলে কেও বুঝবে যে আপনি চোখে আসলে গাড় সবুজ রং এর কাজল ব্যবহার করেছেন ।

আইলাইনার-চোখের কাজল

 

ল্যাকমি আইকনিক কাজল – বাদামী

 

অন্যান্য কাজলের মত এটিও লেপটে যায়না । যারা সাদা এর মাঝে বাদামী শেড পছন্দ করেন তাঁদের জন্য একদম পারফেক্ট হতে পারে এই কাজল ।

 

কিভাবে এই কাজল আমি ব্যবহার করেছি এবং আপনারাও ব্যবহার করবেন ?

 চোখে কাজল দেয়ার নিয়মঃ

  • ক্যাপ খুলুন প্রথমেই
  • প্যাঁচ সমৃদ্ধ প্যাকেট হবার ফলে আপনাকে ঘুরিয়ে বের করে নিতে হবে ।
  • খুব আলতো করে আপনার প্রয়োজন এবং ইচ্ছে অনুযায়ী ব্যবহার করুন চোখের উপরে এবং নিচের জন্য ।
  • গাড় শেড এর জন্য  কয়েকটি লেয়ার দিতে পারেন ।

 

কিভাবে পরিষ্কার করবো ব্যবহার শেষ হবার পরঃ

আপনি ল্যাকমি আইকনিক কাজল খুব সহজেই যেকোন ক্রিম কিংবা  মেকআপ রিমোভার ব্যবহার করে পরিষ্কার করে নিতে পারবেন ।

বাংলাদেশে ল্যাকমি আইকনিক কাজল এর দাম ৩০০-৪৫০ টাকার মাঝে আপনি বিভিন্ন কসমেটিক্স পন্য বিক্রয় করে এমন দোকানে খোঁজ নিলেই পেতে  পারেন ।

আমি নিজে কি এটা সবসময় ব্যবহার করি ?

 

জি হ্যাঁ আমি সবসময়ই আমার সাজগোজ এর ক্ষেত্রে এটাই ব্যবহার করি এবং  আমার মতে এরকম একটি কাজল প্রত্যেকটি মেয়ের  চোখের সৌন্দর্যের জন্য ব্যবহার করা উচিৎ ।

আপনার মেকআপ এর সকল উপকরণের পাশে একটা ল্যাকমি আইকনিক কাজল  থাকা অবশ্যই উচিৎ ।

 

Comments

comments

Join the discussion

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।