সামসাং গ্যালাক্সি এস৭ এজ এবং সামসাং গ্যালাক্সি নোট ৭ এর পার্থক্য

সামসাং গ্যালাক্সি এস৭ এজ VS সামসাং গ্যালাক্সি নোট ৭

২০১৬ সালে এখন পর্যন্ত সামসাং গ্যালাক্সি এস ৭ এজ (Samsung galaxy S7 Edge)  সবচেয়ে জনপ্রিয় হ্যান্ডসেট ।সম্প্রতি সামসাং বাজারে ছেড়েছে সামসাং গ্যালাক্সি নোট ৭(Samsung Galaxy Note 7)  আর গ্যালাক্সি এস ৭ সামসাং মোবাইল এর দাম বেশি। অন্যান্য সমজাতীয় সামসাং মোবাইল সব মোবাইলকে পিছনে ফেলে সবার আস্থা কুড়িয়েছে বিশ্বময় ।

এটা গ্যালাক্সি এস ৭ নোট এর অনেক বৈশিষ্ট্য ধারন করে তবে সামসাং গ্যালাক্সি এস৭ এজ এবং সামসাং গ্যালাক্সি নোট ৭ এর পার্থক্য কোথায় -সেটা জানাতেই আমাদের এই বিস্তারিত গাইড।

Read [Samsung Galaxy Note 7  Specs, Features, Release Date]

Read [স্যামসাং গ্যালাক্সি এস ৭ -রিভিউ]

Read[Samsungs Galaxy S7 এবং S7 Edge-রিভিউ]

ডিসপ্লে -সামসাং গ্যালাক্সি নোট ৭(Samsung Galaxy Note 7) ও গ্যালাক্সি এস ৭ এজ (Samsung galaxy S7 Edge)

সামসাং গ্যালাক্সি নোট ৭(Samsung Galaxy Note 7) ও গ্যালাক্সি এস ৭ এজ (Samsung galaxy S7 Edge) দুটোরই বাঁকানো এজ  ডিসপ্লে।

সামসাং গ্যালাক্সি এস৭ এজ VS সামসাং গ্যালাক্সি নোট ৭-productreviewbd

তবে, আপনি যদি খুব সূক্ষ্মভাবে লক্ষ্য করেন তবে তাদের নিখুঁত পার্থক্য বুঝতে পারবেন ।

      গ্যালাক্সি এস ৭ নোট (Samsung Galaxy Note 7)  – ৫.৭ ইঞ্চি বাঁকানো প্যানেল, ২৫৬০ বাই ১৪৪০ পিক্সেল ( ৫১৮ পিপিআই ) সুপার এমোলেড ডিসপ্লে সাথে গরিলা গ্লাস ৫।

      গ্যালাক্সি  এস ৭ এজ (Samsung galaxy S7 Edge)  -৫.৫ ইঞ্চি ফ্লাট প্যানেল , ২৫৬০ বাই ১৪৪০ পিক্সেল ( ৫৩৪ পিপিআই ) সুপার এমোলেড ডিসপ্লে সাথে গরিলা গ্লাস ৪।

হ্যাঁ, গ্যালাক্সি নোট ৭ এর রয়েছে বড় প্যানেল আর গরিলা গ্লাস ৫ যা বেশী শক্ত যাতে পড়ে গেলেও ভেঙ্গে যাওয়ার সম্ভাবনা কম।

অন্যদিকে গ্যালাক্সি এস ৭ এজ এর  রয়েছে প্রতি ইঞ্চিতে বেশী পিক্সেল।

সামসাং গ্যালাক্সি নোট৭-productreviewbd

আরও কিছু উল্লেখযোগ্য পার্থক্য হল -গ্যালাক্সি নোট এস ৭ (Samsung Galaxy Note 7)  ) এ বাঁকানো কার্ভ একটু কম গ্যালাক্সি এস ৭  এজ এর তুলনায় যাতে ভুলবশত ইনপুট কম হয় আর দুটোরই রয়েছে ওলওয়েজ অন ডিসপ্লে । গ্যালাক্সি নোট ৭ হ্যান্ড রাইটিং সাপোর্ট রয়েছে যা আপনাকে দ্রুত কোন নোট রাখতে সাহায্য করবে। দারুণ না!

 The Galaxy Note 7-productreviewbd

ডিজাইন ও আকার – উচ্চ মানের মেটাল আর নিপুনতা

এই দুটোরই পিছনে গ্লাস যা্র (তারবিহীন চারজিং করতে সক্ষম) সাথে এলুমিনিয়াম চেসিস  এবং এর অন্যান্য গঠন অ্যাপেল এইচকিউ মতো ভালো

এর ছোট সাইজের স্ক্রিনঃ

সামসাং গ্যালাক্সি নোট৭-design-productreviewbd

      ৫.৭ ইঞ্চি গ্যালাক্সি নোট ৭-১৫৩.৫ বাই ৭৩.৯বাই ৭.৯ মিমি. ( ৬.০৪ বাই ২.৯১ বাই ০.৩১ ইঞ্চি) এবং ওজন  ১৬৯ গ্রাম ( ৫.৯৬ আউন্স)।

      ৫.৭ ইঞ্চি গ্যালাক্সি এস ৭ এজ  -১৫০.৯ বাই ৭২.৬ বাই ৭.৭ মিমি. ( ৫.৯৪ বাই ২.৮৬ বাই ০.৩০ ইঞ্চি) এবং ওজন  ১৫৭ গ্রাম ( ৫.৫৪ আউন্স)।

তবে, এদের সুন্দর কিছু মিলও রয়েছে যেমন পানি নিরোধক আইপি ৬৮ (সামসাং মোবাইল যা পানিতে ডুবে গেলেও কিছু হবে না, সম্প্রসারণযোগ্য মাইক্রো এসডি স্টোরেজ ।এই সবগুলি হল বুদ্ধি আর সুন্দরের একত্রিত হয়ে ডিজাইন করা ফোন।

কার্যকরীতাঃ

গ্যালাক্সি নোট ৭ ও গ্যালাক্সি এস ৭

এজ  দুটোই কার্যকরীতায় একই রকম।

      সামসাং গ্যালাক্সি নোট ৭(Samsung Galaxy Note 7) ও সামসাং গ্যালাক্সি এস ৭ এজ  – ইউ এস ভারসানঃ কোয়াল কম স্নাপ ড্রাগন ৮২০ ( ডুয়াল কোর ২.১৫ গিগা হার্ডজ কাইরো এবং ডুয়াল কোর ১.৬ গিগা হার্ডজ  কাইরো সি পিইউ , এডারনো ৫৩০ জিপিইউ, ৪ গিগা  রেম।

      সামসাং গ্যালাক্সি নোট ৭ ও সামসাং গ্যালাক্সি এস ৭ এজ  – আন্তর্জাতিক  ভারসানঃ এক্সিনোজ ৮৮৯০(কোয়াড কোর   ২.৩ গিগা হার্ডজ + কোয়াড কোর  ১.৬ গিগা হার্ডজ   সিপিইউ , মালি -টি ৮৮০ এমপি ১২ জিপিইউ  ), ৪ গিগা  রেম।

সামসাং গ্যালাক্সি এস৭ এজ-productreviewbd

কিন্তু গ্যালাক্সি এস ৭ নোটের( Samsung Galaxy Note 7) এমন কিছু আছে যা অন্য মোবাইলে নেই তা হল ইরিস স্ক্যানার যা লক স্ক্রিনে চোখের সমান্তরালে কাজ করে এবং সামসাং ফোন দাবী করে যে, এটা ফিঙ্গার প্রিন্ট এর সেন্সর এর মতো দ্রুততর এবং ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর এ তুলনায় ১০০ গুল বেশী নিরাপদ। তার মানে হল এটা ব্যবহার একটু অসুবিধাজনক ফিঙ্গার প্রিন্ট স্ক্যানার এর তুলনায়।

তবে এটি ঠিক যে, সামসাং মোবাইল দাম Walton কিম্বা  symphony এর চাইতে সবসময় বেশি। গ্রাহক গন সবসময় চান যে স্যামসাং মোবাইল এর দাম যেন তার বাজেটের ভিতর থাকে।

সামসাং মোবাইল দাম বেশি হওয়ার কারন হল এর টেক ফিচার ও উন্নত সফটওয়্যার।

সফটওয়ার –

সামসাং গ্যালাক্সি এস ৭ নোটের এর নুতন এজ  ডিসপ্লে  সংজোযন  নুতন কারজপরিধি এনেছে। এজ  এর বৈশিষ্ট্য এর ব্যবহারকারীদের স্ক্রিনে সর্ট কাট ও ওইজাড  নির্বাচনে সুইপ এলাও করে এবং যা তৃতীয় পক্ষ অ্যাপ তৈরীকারকদের এর সমর্থন করে।

সামসাং গ্যালাক্সি নোট ৭ এর সুবিধা হল এর এস পেন স্টাইল । এর ফলে হ্যান্ড রাইটিং নোট নেয়া বা দ্রুত অনুবাদের সুবিধা দেয় সাথে জিআইএফ তৈরি ও মেমো লেখায় দ্রুততা আনে। এস পেন এর রয়েছে ৪০৯৬ প্রেসার সংবেদনশীলতা ।

ক্যামেরা  –

সামসাং গ্যালাক্সি এস ৭ ও গ্যালাক্সি এস ৭ এজ    এর রয়েছে বাজারের সবচেয়ে ভাল মানের স্মার্ট ফোনের ক্যামেরা। তাই সামসাং গ্যালাক্সি নোট ৭ একই মডেলের ক্যামেরা সংজোযন করেছে।

পিছনের ক্যামেরাঃ ১২ মেগা পিক্সেল সনি আইএমএক্স ২৬০ এফ১ সেন্সর (  কিছুতে সামসাং আইএসওসিইএলএল আছে) ও আই এস, এলইডি ফ্ল্যাশ, ডুয়াল পিক্সেল, ৪ কে ভিডিও।

সামনের ক্যামেরাঃ  ৫ মেগাপিক্সেল এফ ১.৭ ক্যামেরা, ১০৮০ পি ভিডিও।

প্রধান সুবিধা হল তৎক্ষণাৎ ফোকাস টাইম আর অতি ভাল কম আলোর কার্যকরীতা । সাথে এটিও দুঃখজনক যে, সামসাং গ্যালাক্সি এস ৭ এর কোন উন্নিতকরনের পদক্ষেপ নেয়নি যা গ্যালাক্সি নোট ৭ এর ৬ মাস পিছনে রয়েছে। এদিকে ২০১৭ সালের বাজারে আসার কথা রয়েছে গ্যালাক্সি এস ৮  এজ  যা গ্যালাক্সি নোট ৭ এর ক্রেতাদের একটু অসস্তির কারণ হতে পারে।

 

ব্যাটারি  লাইফ-

গ্যালাক্সি নোট ৭  এর ব্যাটারি দীর্ঘায়ু নয় যা আশ্চর্যজনক । যদিও এর আছে ৩৫০০ এমএএইচ ব্যাটারি ( গ্যালাক্সি নোট ৫ হতে ৫০০ এমএএইচ বেশী) যাতে ৫.৭ ইঞ্চি ডিসপ্লে কে শক্তি জোগাতে হয় ( ডিসপ্লে এখন পর্যন্ত স্মার্ট ফোনে সবচেয়ে বেশী পাওয়ার শোষণ করে)

এদিকে ছোট সাইজের গ্যালাক্সি এস ৭ এজ   ৫.৫ ইঞ্চি যার রয়েছে বেশী ক্ষমতা সম্পন্ন ৩৬০০ এম এ এইচ ব্যাটারি।

স্টোরেজ-

Galaxy Note 7 microSD-productreviewbd

প্রথম দিকে গ্যালাক্সি নোট ৭ এ একটি বড় সুবিধা ছিল। গ্যালাক্সি এস ৭, ৩২ জিবি আভ্যন্তরীণ স্টোরেজ রয়েছে গ্যালাক্সি নোট ৭ এর আছে ৬৪ জিবি সাথে মাইক্রো এসডি যা সম্প্রসারনযোগ্য গালক্সি এসডজ এর মতো।

সামসাং গ্যালাক্সি এস ৩, স্যামসাং গ্যালাক্সি জে৫, সামসাং গ্যালাক্সি এস ৫ , সামসাং জে ৫ ছিল বিগত বছরের হিট গ্যালাক্সি।

আসল স্যামসাং মোবাইল চেনার উপায় কি টা জানতে চেয়েছেন অনেকেই, আমরা পরে এ ব্যাপারে বিস্তারিত আলোচনা করব।অরজিনাল স্যামসাং মোবাইল চেনার উপায়, না জানলে আপনি যেটা করবেন, সেটা হল সামসাং এর authorised dealer থেকে সামসাং মোবাইল          কিনবেন।

Comments

comments

Join the discussion

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।