হুয়াওয়ে পি ৯ মোবাইল

আমার বাজেট ছিল ৫০,০০০ টাকা এবং এই বাজেটে মোটামুটি ভাল একটি স্মার্টফোন কেনার জন্য অনলাইনে রিসার্চ করছিলাম তখন হুয়াওয়ে পি ৯ মোবাইলটির ফিচারস দেখে অবাক হয়ে গেলাম এবং এখনও অপেক্ষায় আছি কবে বাংলাদেশে আসবে? আর আমার ইচ্ছা প্রথমদিনই আমি এই স্মার্টফোনটি কেনবো। কোন এক নিউজ পোর্টালে এই মোবাইল সম্পর্কে পড়েছিলাম যে চীনের স্মার্টফোন কোম্পানী হুয়াওয়ে তাদের নতুন স্মার্টফোন নিয়ে নাকি চমক দেখাবে। সত্যিই সেইরকম কিছু চমকই দেখলাম।

huawei-p9-product-review-bd

স্মার্টফোনটি এপ্রিলের ১৬ তারিখ প্রথম ইউরোপ এবং  চীন  এ যাত্রা শুরু করে। প্রথম দিনেই তারা এই স্মার্টফোনের দুইটি ভার্সন বাজারে ছাড়ে একটি হল হুয়াওয়ে পি ৯ এবং অন্যটি হুয়াওয়ে পি ৯ প্লাস। স্বল্প সময়েই বাজারে ব্যাপক সারা ফেলে দেয়। এক এবং দুই নাম্বারে থাকা স্যামসাং ও অ্যাপলের পরেই আছে এই স্মার্টফোন। কি অবাক করার মত খবর না? হ্যাঁ, আরো অবাক হবেন যখন আপনি এর ফিচারস সম্পর্কে জানতে পারবেন। এটি স্মার্টফোন ফটোগ্রাফি দুনিয়ায় ডাবল লেন্স দ্ধারা নতুন যুগান্তরের শুরু করেছে। এই ক্যামেরা দ্ধারা এক সাথে একই ছবি রঙিন এবং সাদা কালো উভয়ভাবেই ধারণ করা সম্ভব।

কবে প্রথম বাজারে আসে: এপ্রিল ২০১৬।

এই খবর যখন আমি প্রথম অনলাইনে পেলাম তখন আমি একটি কঠিন প্রশ্নের মাঝে ঘোরপাক খাচ্ছিলাম যে কেন ডাবল লেন্স?

পরে এই সম্পর্কে রিসার্চ করে জানতে পারলাম যে ভালো কালার এবং স্বল্প আলোতে সর্বাধিক ভালো ছবি তোলার জন্য এই প্রযুক্তির ব্যাবহার করা হয়েছে।ওহ! আমি বলতেই ভুলে গেছিলাম ফটোগ্রাফির উপর আমার আবার অন্য রকমের একটা আকর্ষণ আছে।

huawei-p9-leica-lenses-productreview-bd

হুয়াওয়ে পি ৯ মোবাইল স্মার্টফোনটির বাংলাদেশে আনুমানিক দাম ধারণা করা হচ্ছে ৪৭, ১০০ টাকা মাত্র।

যদিও হুয়াওয়ে পি ৯ মোবাইল এখনো বাংলাদেশে বাজারে যাত্রা শুরু করে নি। তবে আসা মাত্রই আমরা এখানে সঠিক মূল্য আপডেট করবো। তবে আপনারাও যদি এই স্মার্টফোনটি সম্পর্কে খুঁজ খবর রাখতে চান তাহলে তাদের অফিশিয়াল ফেইসবুকে চোখ রাখতে পারেন। হুয়াওয়ে অফিশিয়াল ফেইসবুক পেইজে ভিসিট করতে হুয়াওয়ে FB। শুধু আমার কাছেই এটি অন্যতম মনে হয়েছে এমনটি না, এর গুঞ্জন আমার মনে উঠেছে বিভিন্ন প্রযুক্তি-বিষয়ক ওয়েবসাইট থেকেই। আর সেউ গুঞ্জন কতটুকু কাজের তা আমরা যেসব দেশে মোবাইলটি চলছে তা থেকেই ধারণা করতে পারি।

কোন কোন রঙে পাওয়া যাচ্ছে?

সাদা, সোনালী, সিল্ভার এবং ছাই রঙে।

huawei-p9-product-reviewbd

তবে মোবাইলের স্পেসিফিকেশন দেখেন আমি মূলত কেনার আগ্রহ প্রকাশ করি। আর এই মোবাইলটির স্পেসিফিকেশনও ছিল আর চার পাঁচটা মোবাইলের থেকে আলাদা।

হুয়াওয়ে পি ৯ মোবাইল রেটিংসঃ

সুতরাং সব দিক বিবেচনা করে এর গড় রেইটিংস ১০ এর মাঝে ৭.৭৫।

তো চলুন জেনে নেওয়া যাক হুয়াওয়ে স্মার্টফোনের সম্পূর্ণ স্পেসিফিকেশনঃ

বডি তৈরি করা হয়েছে স্টিলজাতক দ্রব্য দ্বারা। তবে ফোনটি ওয়াটা প্রুফ না।কোন ধরণের এবং কয়টি সিম সাপোর্ট করে: স্মার্টফোনটিতে ডাবল সিম এবং দুইটিই ন্যানো সিম হতে হবে।

এন্ড্রোয়েড অপারেটিং সিস্টেম ভার্সন:  সর্বশেষ এন্ড্রোয়েড ওএস ভার্সন মার্শমালো ৬.০।

কোন ধরণের সিম সার্ভিস সাপোর্ট করে:  মোবাইলটিতে ২জি, ৩জি এবং ৪জি পর্যন্ত ব্যাবহার করা সম্ভব।

প্রসেসিং সম্পর্কিত তথ্যঃ

হুয়াওয়ে স্মার্টফোন পি ৯ এ কোয়াড কোর ২.৫ জিএইচজেড কর্টেক্স – এ৭২ এবং কোয়াড কোর ১.৮ জিএইচজেড কর্টেক্স – এ৫.৩ প্রসেসর ব্যাবহার করা হয়েছে।এই চিপসেট হল হাইসিলিকন কিরিন ৯৫৫ মডেলের এবং মালি টি ৮৮০ এমপি ৪ গ্রাফিক্স ব্যাবহার করা হয়েছে।

মোবাইলটির আরেকটি আকর্ষনীয় অংশ হলো এর মেমোরি। চলুন এর স্থায়ী এবং অস্থায়ী মেমোরি সম্পর্কিত ধারণ ক্ষমতা জেনে নেওয়া যাকঃ

এই ফোনটি ইন্টার্নাল স্টোরেজ ৩২ জিবি / ৬৪ জিবি এবং এক্সটার্নাল ১২৮ জিবি পর্যন্ত সাপোর্ট করে। ৩২ জিবি ভার্সনে ৩ জিবি এবং ৬৪ জিবি ভার্সনে ৪ জিবি র‍্যাম ব্যাবহৃত হয়েছে। সুতরাং বোঝতেই পারছেন এর মেমোরি ধারণ ক্ষমতা কতটা বিশাল।

মেমোরি ধারণ ক্ষমতা বিশাল হওয়ার সাথে সাথে এর ডিস্প্লে ও বিশাল রাখা হয়েছে।কারণ বর্তমানে বেশির ভাগ স্মার্ট ফোন ক্রেতারাই চায় যে তার স্মার্টফোনের ডিসপ্লে বড় হোক।

ডিসপ্লে

তো চলুন জেনে নেওয়া যাক এর ডিসপ্লে সম্পর্কেঃ ডিসপ্লে সাইজ ৫.২ ইঞ্চি এবং ডিসপ্লের ধরণ আইপিএস এলসিডি টাচ স্ক্রিন ১৬এম কালারস। স্মার্ট ফোনটির ডিস্প্লে রেজ্যুলেশন ১০৮০* ১৯২০ পিক্সেল,পিপিআই ৪২৪ পিপিআই পিক্সেল, মাল্টি টাচ সাপোর্টেড এবং গোরিলা গ্লাস ৪ দ্বারা কর্নার আবৃত।

Huawei P9 Smartphone -diplay-product-reviewbd

এবার চলুন সেই ডাবল লেন্স আছে সেই ক্যামেরা সম্পর্কে জেনে নেওয়া যাকঃ

মূল ক্যামেরা দুইটি ১২ এমপি, এফ / পি ২.২, ২৭ এমএম, লেইকা অপটিক্স। ১০৮০ পি @ ৩০ এফপিএস এর ভিডিও ধারণ করা সম্ভব। ডাবল ফ্ল্যাশ। ক্যামেরাতে আরো আছে লোকেশন ট্যাগ, ফেইস ডিটেকশন, টাচ ফোকাস, স্মাইল ডিটেকশন, প্যানোরামা, এইচডিআর এবং ফ্রেইস ডিটেকশন ফিচারস। এছাড়া রয়েছে ৮ এমপির সেকেন্ডারী ক্যামেরা।

Huawei P9 Smartphone -camera

নেটওয়ার্ক এবং কানেক্টিভিটি

এবার চলুন স্মার্টফোনটির নেটওয়ার্ক এবং কানেক্টিভিটি সম্পর্কে জেনে নেওয়া যাকঃ

২ জি নেটওয়ার্কঃ জিএসএম ৮৫০ / ৯০০ / ১৮০০ / ১৯০০ – সিম ১ এবং সিম ২

৩ জি নেটওয়ার্কঃ এইচএসডিপিএ ৮৫০ / ১৭০০ / ১৯০০ / ২১০০

৪ জি নেটওয়ার্কঃ এলটিই

স্পীডঃ এইচএসপিএ ৪২.২ / ৫. ৭৬ এমবিপিএস , এলটিই ক্যাট ৬ ৩০০ / ৫০ এমবিপিএস

জিপিআরএসঃ আছে

ইডিজিইঃ আছে।

ওয়াই – ফাইঃ ৮০২.১১ এ / বি / জি / এন, ডাবল – ব্যান্ড, ডিএলএনএ, ওয়াই – ফাই

হটস্পট

ব্লুটুথঃ আছে, ভি ৭.০ সাথে আছে এ২ডিপি

ইউএসবিঃ টাইপ – সি ১.০ কানেক্টর

জিপিএসঃ আছে, এ – জিপিএস সাপোর্ট এবং জিএলওএনএএসএস

এনএফসিঃ আছে

অডিও জ্যাকঃ ৩.৫ এমএম জ্যাক

রেডিওঃ স্টেরো এফএম রেডিও

এই বিশাল ফিচারস লিস্ট সম্পৃক্ত স্মার্টফোনের ব্যাটারীও যে বিশাল হবে তা বলার উপেক্ষা রাখে না।

চলুন জেনে নেওয়া যাকঃ

ব্যাটারীর ধরণঃ লি – পো ব্যাটারী ,ক্যাপাসিটিঃ ৩০০০ এমএএইচ, ব্যাটারী আলাদা করা যায় না।

সেন্সরসঃ ফিঙ্গার প্রিন্ট, এক্সিলারোমিটার, গাইরো, প্রক্সিমিটি, কম্পাস, বারোমিটার ইত্যাদি।

আর সবচেয়ে অবার করা বিষয় হচ্ছে স্মার্টফোনটি সামান্য বাঁকা করে তৈরি করা হয়েছে।

অবশেষে আমরা বলতে পারি এই একটি অসাধারণ স্মার্টফোন।

পরিশেষে বলা যায় হুয়াওয়ে স্মার্টফোন বিশ্বের একটি নতুন ধাপ ধরে এগিয়ে যাচ্ছে এবং ধারণা করা হচ্ছে আগামী কয়েক বছরের মাঝে এটির ব্যাবহারকারী ব্যাপক হারে বৃদ্ধি পাবে। এছাড়া ট্যাবলেট বাজার দখল করার জন্য উইন্ডোজ ১০ অপারেটিং সিস্টেম চালিত মেটবুক নামক টুইনওয়ান ট্যাব বাজারে আনা হতে পারে বলে জানায় মোবাইল ওয়াল্ড কংগ্রেস। আশা করা হচ্ছে বাংলাদেশেও এই স্মার্টফোনটি আলোড়ন ছড়াবে।

Comments

comments

Join the discussion

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।