আপনার কি চুল পড়ে যেতে শুরু করেছে? টাক ঢাকতে ক্যাস্টর ওয়েল

আপনার কি চুল পড়ে যেতে শুরু করেছে? তো আমরা কিভাবে এই টাক হয়ে যাওয়া রোধ করব?  এই চুল পড়া রোধের উপায় কি? আপনি যদি ভেবে থাকেন যে চুল পড়া রোধের ট্রিটমেন্ট খরচান্ত ব্যাপার বা একমাত্র উপায় হল চুল ট্র্যান্সপ্লান্ট তবে আপনার জন্য একটি বড় বিস্ময় হল এই ক্যাস্টর ওয়েল যার মাধ্যমে আপনি আপনার চুল পড়া রোধ করে টাক হয়ে যাওয়া থেকে রক্ষা পেতে পারেন।

আমরা সবাই চুল পাতলা হয়ে যাওয়া নিয়ে ভীত থাকি। বিশেষ করে যখন আমাদের বয়স বাড়তে থাকে তখন তো সবাই এই সমস্যায় পড়েন। ছেলেদের জন্য আরও ভীতিকর কারণ অনেকেরই টাক হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে চুল পাতলা হয়ে। তাই এর সঠিক ট্রিটমেন্ট আপনাকে অকালে টাক হয়ে যাওয়া থেকে রক্ষা করবে।

কোথায় পাবেন : akhoni.com

মেয়েদের রূপচর্চায় ওয়েল'স এর ক্যাস্টর ওয়েল

[আসুন আমার জেনে নেই, কেন এই ওয়েল’স এর ক্যাস্টর ওয়েল ]

টাক ঢাকতে ক্যাস্টর ওয়েল – এটি কিভাবে কাজ করে

ক্যাস্টর ওয়েল একটি প্রাকৃতিক তেল যার উপাদানগুলির মধ্যে আছে ফ্যাটি এসিড ও রিসিনলেইক এসিড । এতে আরও আছে ভিটামিন এ, প্রোটিন, ভিটামিন ই, খনিজ ও এন্টি ব্যাকটেরিয়াল ও এন্টি ফাঙ্গাল উপাদান।

এটা যেহেতু ঘন তাই এর আবরন চুলকে ও মাথার ত্বকগকে ছোট জীবানুর হাত হতে রক্ষা করে আর একই সাথে  ব্যাকটেরিয়া আর ফাঙ্গাস এ বিরুদ্ধে কাজ করে যেগুলি মাথার ত্বকে থাকে। এর আদ্র রাখার ক্ষমতা মাথার ত্বক কে শুষ্ক হয়ে যাওয়া থেকে রক্ষা করে আর হেয়ার ফলিকল থেকে রক্ষা করে। আপনি যখন ক্যাস্টর ওয়েল ব্যবহার করবেন তখন নীচের এই উপকারগুলি পাবেন পুরোপুরিই

চুল পড়া রোধে ক্যাস্টর অয়েলের আশ্চর্য ব্যবহার

১) রক্ত সঞ্চালন বৃদ্ধি পায়

ক্যাস্টর ওয়েল যখন আপনি চুলের ও চুলের গোঁড়ায় মাসাজ করবেন তখন নিশ্চিত যে আপনার মাথার ত্বকে রক্ত সঞ্চালন বৃদ্ধি করবে  যার ফলে চুলের বৃদ্ধি ঘটে আর চুল দ্রুত লম্বা হয় ও শক্তিশালি হয় ।

২) চুল পড়া রোধ করে:

যেহেতু ক্যাস্টর ওয়েল এ এন্টি ব্যাকটেরিয়াল ও এন্টি ফাঙ্গাল উপাদান আছে তাই নিয়মিত এর ব্যবহারে মাথার ত্বকে কোন ইনফেকসান হতে পারে না। গবেষণায় দেখা গেছে যে, যারা নিয়মিত ক্যাস্টর ওয়েল চুলে ব্যবহার করেন তাদের মাথার ত্বকে চামড়া ওঠা বা দাদ হওয়া এসব সমস্যা খুব কম হয়। এটি মাথার ত্বক সুস্থ ও সুন্দর রাখে।

৩) চুলের আগা ফাটা নিয়ন্ত্রণ করে:

যেহেতু ক্যাস্টর ওয়েল চুলকে শক্তিশালী করে তাই চুল ভেঙ্গে যাওয়া ও আগা ফাটাও কমে আসে। এজন্য যাদের চুল নষ্ট হয়ে গেছে বা যারা রুক্ষ শুষ্ক চুল নিয়ে হতাস তাদের জন্য ক্যাস্টর অয়েলের ব্যবহার অনেক বেশী সুফল বয়ে আনবে। ক্যাস্টর ওয়েল ব্যবহারে তারা নিজেরাই পার্থক্যটা অনুভব করতে পারবেন।

৪) মাথার ত্বক আদ্র রাখে

ক্যাস্টর অয়েলের ব্যবহার মাথার ত্বককে আদ্র রাখে। এটা খুব ঘন তাই চুল ও মাথার ত্বক কে অনেক বেশী সময় সুরক্ষিত রাখে। চুলের রুক্ষতা দূর করে এটি চুলের হারিয়ে যাওয়া আদ্রতা ফিরিয়ে আনে।

কিভাবে ক্যাস্টর ওয়েল ব্যাবহার করবেন ?

ক্যাস্টর ওয়েল অতি মাত্রায় ঘন তাই এটি চুল বা মাথার ত্বকে লাগানো একটু কস্টকর। এজন্য ক্যাস্টর অয়েলের সাথে অন্য কোন প্রাকৃতিক তেল যেমন নারকেল তেল বা অলিভ ওয়েল মিশিয়ে ব্যবহার করবেন। যেখান থেকে আপনার চুল বেশী পড়ে যাচ্ছে সেখানে কটন বার দিয়ে এই ক্যাস্টর ওয়েল লাগান। সারারাত  লাগিয়ে রেখে সকালে শ্যাম্পু করে ফেলুন যাতে আপনার হেয়ার স্টাইল করতে কোন ঝামেলা না হয়।

ক্যাস্টর ওয়েল চুলের জন্য একটি বিস্ময়কর তেল। এর প্রভাব চুলে অতুলনীয় । এটা খুব দামি নয় এবং সব জায়গায় পাওয়া যায়।

এখন তো আপনি জানেন ক্যাস্টর ওয়েল দিয়ে কিভাবে আপনি চুলের যত্ন নিবেন আর টাক পড়া রোধ করবেন। তো আজই এ চেষ্টা শুরু করুন আর আপনার পরিবারের সবাইকে ও নিকটসজনদেরও জানাতে ভুলবেন না এই আশ্চর্য ক্যাস্টর ওয়েল এর অদ্ভুত গুনগুলো।

ক্যাস্টর ওয়েল নিয়ে আপনি যদি আরও কিছু জানেন যার মাধ্যমে অন্য সবাই উপকৃত হবে তবে তা আমাদের জানাতে ভুলবেন না ।

 

Comments

comments

Join the discussion

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।