Hero Maestro Edge স্কুটার কেনো Honda Activa স্কুটারের চেয়ে ভালো : ৫টি কারন

Hero Maestro Edge স্কুটার কেনো Honda Activa স্কুটারের চেয়ে ভালো


হিরো ম্যাস্ট্রো এজ (Hero Maestro Edge) এই সেগমেন্টের বাইকগুলোর মধ্যে সবচেয়ে প্রশংসনীয় একটি বাইক।

দেশে স্কুটারের বাজার দখলে সেই সহযোগী, হিরো-ই এখন প্রতিদ্বন্দ্বী হিরো মোটোকর্প-এর।

বাইকটিতে ১১০.৯ সিসি সিঙ্গিল সিলিন্ডার ইঞ্জিন রয়েছে, ৭৫০০ আরপিএম এ ৮ বিএইচপি এবং ৫৫০০ আরপিএম এ ৮.৭ এনএম এর জন্য ম্যাস্ট্রো এজ বেশ ভালো।

Hero Maestro Edge স্কুটার কেনো Honda Activa স্কুটারের চেয়ে ভালো

ইঞ্জিনটি ভ্যারিওমেটিক ট্রান্সমিশন এ সংযুক্ত হতে পারে, যেটা আরোহীকে গিয়ার পরিবর্তনের ঝামেলা ছাড়ায় আনন্দদায়ক ড্রাইভিং উপভোগ করতে সাহায্য করবে।

হিরো ম্যাস্ট্রো এজ (Hero Maestro Edge) এর দাম আনুমানিক ১,২১,০০০ টাকা হতে পারে (স্কুটি বাইক দাম), এবং এই সেগমেন্টে বাইকটির অন্যতম প্রতিদ্বন্দ্বী হলো হোন্ডা অ্যাক্টিভা (Honda Activa) ।

বাইকটির ৫ অসাধারণ ফিচার রয়েছে যেটা এর প্রতিদ্বন্দ্বীর নেই।

Click to read>>

সেরা ১০ টি ১১০ সিসি স্কুটার – ২০১৭ – Product Review BD

 

এখানে এই ৫টি ফিচার দেয়া হলো যা প্রতিযোগিতায় হোন্ডা অ্যাক্টিভা  কে হারিয়ে হিরো ম্যাস্ট্রো কে বিজয়ী প্রমান করে।

১। টেলিস্কোপিক ফ্রন্ট সাসপেন্সানঃ

সব মটরসাইকেল টেলিস্কোপিক ফর্ক দিয়ে সজ্জিত থাকে যার কারনে এরা টেকসই হয় এবং এদের মেইনটেন করাও বেশ সহজ।

স্কুটার বাংলাদেশ

হিরো ম্যাস্ট্রো এর রয়েছে টেলিস্কোপিক সাসপেন্সন অপরদিকে হোন্ডার রয়েছে অ্যাক্টিভা ৪জি সাথে আছে স্প্রিং লোডেড হাইড্রোলিক সাসপেন্সন।

নিশ্চিতভাবেই অসমতল রাস্তায় হোন্ডার চেয়ে হিরো অনেক ভালো কাজ করবে।

২। এক্সটারনাল ফুয়েলঃ

হিরো ম্যাস্ট্রো তে এক্সটারনাল ফুয়েল ফিলার থাকার কারনে গাড়িতে ভ্রমনের অনুভুতি পাওয়া যাবে এটা থেকে।

সীট থেকে আপনি বা পিলিওন না সরিয়েও খুব সহজেই এটা খোলা যায়, অপরদিকে অ্যাক্টিভা তে রাইডিং এর সময় এই কাজটি করার জন্য প্রতিবার সীট থেকে সরে দাড়াতে হবে।

৩। ডুয়াল টোন শেডঃ

কেন স্কুটারকে সবসময় গতানুগতিক  রাখা হয়? ম্যাস্ট্রো এজের দুটি ডুয়াল টোন শেড রয়েছে, একটি হচ্ছে সাদার সাথে লাল রঙ এবং অপরটি হলো নীল।

শুধু তাই নয়, ম্যাস্ট্রোর অন্যান্য রঙ গুলি বিভিন্ন বয়সি রাইডারদের চাহিদাগুলোকে গুরুত্বের সাথে অনুধাবন করেই নির্বাচিত করা হয়েছে।

৪। এলোই হুইলঃ

১২ ইঞ্চির ফ্রন্ট টায়ার এর চারপাশে চমৎকার কালো এলোই হুইল থাকার কারোনে হিরো ম্যাস্ট্রো অসাধারণ সুন্দর একটা লুক পেয়েছে।

স্কুটারের দাম

হোন্ডায় এলোই হুইল দেয়া হয় নাই বরং যেখানে উভয় স্কুটারেই টিউবলেস টায়ার ব্যবহার করা হয়েছে রাইডারদের অধিক সুবিধা প্রদানের জন্য।

৫। ইমমোবিলাইজার এবং সারভিস রিমাইন্ডারঃ

ম্যাস্ট্রো এর সেমি ডিজিটাল কনসোলে সারভিস রিমাইন্ডার রয়েছে, একইসাথে ইমমোবিলাইজার স্কুটারটিকে চুরির হাত থেকে বাঁচাতে সাহায্য করে।

স্কুটার প্রেমীদের মনে এই ফিচার দুটি ম্যাস্ট্রো এজ কে আরো সহজ ও নিরাপদ করে তুলেছে।

Comments

comments

Join the discussion

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।