দারুন সব ফিচারের সম্ভার নিয়ে মিড রেঞ্জের নোকিয়া ৭(Nokia 7) এখন বাজারে

দারুন সব ফিচারের সম্ভার নিয়ে মিড রেঞ্জের নোকিয়া ৭  এখন বাজারে

এইচএমডি গ্লোবাল লঞ্চ করলো মিড রেঞ্জের নতুন স্মার্ট ফোন নোকিয়া 7 (Nokia 7)। ২০০০ সাল থেকে ২০০৫ সাল পর্যন্ত অ্যানালগ মোবাইল হ্যান্ডসেটের জগৎ মাতিয়ে রেখেছিল ‘নোকিয়া ৩৩১০

আপনার জন্য ফোনটি কেমন হবে জানতে চাইলে আমাদের সাথে থাকুন এর  আলোচনায়।

দারুন সব ফিচারের সম্ভার নিয়ে মিড রেঞ্জের নোকিয়া 7(Nokia 7) এখন বাজারে

 নোকিয়া ৭ (Nokia 7)এর প্রধান স্পেসিফিকেশন

  • ব্র্যান্ডঃ নোকিয়া, মডেলঃ ৭
  • অক্টোবর ২০১৭ লঞ্চ করা হয়েছে
  • ডুয়াল সিম (ন্যানো)
  • আয়তন ১৪১.২০*৭১.৪০*৭.৯০ মিলি মিটার
  • ৩০০০ এমএএইচ নন রিমুভেবল ব্যাটারি
  • ৫.২০ ইঞ্চি টাচস্ক্রিন, রেজুলেশন ১০৮০*১৯২০ পিক্সেল, ৪২৩ পিক্সেল পার ইঞ্চি
  • প্রসেসর ২.০ গিগাহার্জ অক্টা কোর কোয়ালকন স্ন্যাপড্রাগন ৬৩০
  • ৪ জি বি র‍্যাম
  • ৬৪ জি বি স্টোরেজ, মাইক্রো এস ডি কার্ড দিয়ে ধারন ক্ষমতা ১২৮ জি বি পর্যন্ত বাড়ানো যাবে
  • ৫ মেগাপিক্সেল সেলফি ক্যামেরা এবং ১৬ মেগাপিক্সেল রিয়ার ক্যামেরা সাথে রয়েছে পিডিএএফ ফ্ল্যাশ
  • ব্লু টুথ ভি ৫.০০
  • ওয়াই ফাই সাপোর্ট ৮০২.১১ a/b/g/n/ac
  • ৩.৫ মিলি মিটার হেডফোন

নোকিয়া 7 এর অন্যান্য ফিচার গুলোর বিস্তারিত আলোচনা করবো এখন, থাকুন আমাদের সাথেই।

 >> Click to read

শক্তিশালী ব্যাটারির নোকিয়া ২(Nokia 2) এখন বাজারে

 

নোকিয়া ৭ (Nokia 7) মোবাইলের দাম

নোকিয়া ৭ মোবাইলের দাম 35,990  টাকা। নকিয়া ৬: ২২ হাজার ৫০০ টাকা।

নোকিয়া 7 এর ডিজাইন

নোকিয়া 7 ফোনটি বেশ মজবুত ভাবে তৈরি করা হয়েছে। এর চার পাশ ৭০০০ সিরিজের এলুমিনিয়াম ম্যাটেরিয়াল দিয়ে তৈরি। এর ব্যাক সাইড যথেষ্ট শক্ত গ্লাস দিয়ে তৈরি এবং সুরক্ষার জন্য করনিং গোরিলা গ্লাস দেয়া হয়েছে। নোকিয়া এই প্রথম নোকিয়া  7 ফোনে ব্যাক সাইডে গ্লাস ব্যাবহার করেছে। নোকিয়ার অন্যান্য ফোনের ব্যাক কভার মেটালের। ফোনটি ডাষ্ট এবং স্প্লাশ রেজিস্টেন্স তবে ওয়াটারপ্রুফ নয়।  ম্যাট হোয়াইট এবং শাইনার গ্লেজি ব্ল্যাক এই দুটি রঙের পাওয়া যাবে। ৭.৯ মিলি মিটার পুরু এই ফোনের ব্যাক কভার কিছুটা বাকানো হওয়ায় এটা ব্যবহার করা সহজ। ব্যাক সাইডে আরো রয়েছে ফিঙ্গার প্রিন্ট সেন্সর এবং জেইস লেন্স।

ডিসপ্লে

নোকিয়া 7 ফোনের ক্যাপাসিটিভ স্ক্রীনের সাইজ ৫.২ ইঞ্চি এবং এর ডিসপ্লে ফুল এইচডি আইপিএস এলসিডি মাল্টি টাচ, ১৬এম কালারস । ফোনটির রেজুলেশন ১৯২০*১০৮০ পিক্সেল, ১৬:৯ রেশিও। পিক্সেল ডেনসিটি ৪২২ পিক্সেল পার ইঞ্চি।ফ্রন্ট সাইডেও সুরক্ষার জন্য করনিং গোরিলা গ্লাস ব্যবহার করা হয়েছে এবং গ্লাস ২.৫ডি বাকানো।  ৫.২ ইঞ্চি ডিসপ্লে এইচডি রেজুলেশন হওয়ায় ডিসপ্লে বেশ সুন্দর।

জনপ্রিয় বেজেল-লেস ডীসপ্লে এই ফোনটিতে দেয়া না হলেও স্ট্যান্ডার্ড ১৬:৯ এস্পেক্ট রেশিও রয়েছে।

পারফর্মেন্স

নোকিয়া 7 ফোনটি চলবে এন্ড্রয়েড ৭.১.১ নুগাট অপারেটিং সিস্টেমে যেটা পরবর্তীতে এন্ড্রয়েড ৮.০ (অরিও) তে আপগ্রেড করা যাবে। রয়েছে  কোয়ালকম স্ন্যাপড্রাগন ৬৩০ চিপসেট যা ১৪ এনএম প্রসেস ভিত্তিক এবং সাথে আছে ৬৪ বিট আর্কিটেকচার। এটি বেশ ভালো মানের চিপসেট। ২.০ গিগাহার্জ অক্টা কোর প্রসেসর এর সাথে আছে এআরএম করটেক্স এ৫৩ কোরস।

প্রসেসরের সাথে জিপিইউ হিসেবে থাকছে এন্ড্রেনো ৫০৮ যা আপনার গেমিং এবং গ্রাফিক্সের কাজ গুলোকে অনেক স্মুথ করে দিবে।

নোকিয়ার এই ফোনটি ৪জিবি/৬জিবি র‍্যাম ভারশনে পাচ্ছেন, এর সাথে আছে ৬৪ জিবি ইন্টারনাল স্টোরেজ। এর হাইব্রিড স্লটে মাইক্রো এসডি কার্ড ব্যবহারের মাধ্যমে স্টোরেজকে আপনি ১২৮ জিবি পর্যন্ত বাড়িয়ে নিতে পারবেন।

উল্লেখ্য যে স্ন্যাপড্রাগন ৬৩০ কোয়ালকম স্ন্যাপড্রাগন ৬২৫ (Redmi Note 4, Mi A1 and Zenfone 3 ফোন গুলোতে ব্যবহার করা হয়েছে)এর চেয়ে কিঞ্চিত শক্তিশালী। কিন্তু এটাই সর্বাধুনিক এস ও সি নয়, সম্প্রতি কোয়ালকম স্ন্যাপড্রাগন ৬৩৬ বের করেছে যেটা এর চেয়েও শক্তিশালী।

ক্যামেরা

নোকিয়া 7  ফোনটির রিয়ারে রয়েছে ১৬ মেগাপিক্সেল জেইস লেন্স সাথে আছে ডুয়াল-টোন এলইডি ফ্লাস। এটি জেইস এর ডুয়াল-সাইট ফিচারকে বুষ্ট করে যার ফলে ভিডিও/ছবি যেটায় হোক, ফ্রন্ট এবং রিয়ার দুটোতেই একসাথে ক্যাপচার করা যায়।

নোকিয়া সেলফির উন্নত ফর্মকে “Bothie” বলে। কোম্পানি এই ফিচারটিকে ইউএসপি নামে বাজারে এনেছে যার মাধ্যমে আপনি সহজেই ফ্রন্ট সাইড এবং রিয়ার সাইড উভয়ই একসাথে ক্যাপচার করতে পারবেন। উল্লেখ্য যে “Bothie” ফিচারটিকে ফ্লাগশিপ নোকিয়া ৮ এর মাধ্যমে প্রথম বাজারে এনেছিল নোকিয়া।

১৬ মেগাপিক্সেল সাথে আছে f/2.0 এপেচার এবং ১.১২ মাইক্রোন লেন্স। এটা ৩০ ফ্রেমস পার সেকেন্ডে ৪কে ভিডিও ধারণও করতে পারে।

এর ফ্রন্ট ক্যামেরা ৫ মেগাপিক্সেল সাথে আছে f/2.0 এপেচার এবং ৮৪ ডিগ্রি প্রসস্ত এঙ্গেল। বিশ্ব জুড়ে যেখানে সেলফির চাহিদা সেখানে মাত্র ৫ মেগাপিক্সেল ফ্রন্ট ক্যামেরা দাম হিসেবে কিছুটা কম বলে মনে হচ্ছে।

সাউন্ড(Sound)

নোকিয়া 7  ফোনটি ভিডিও ধারনের সময় তাদের নিজস্ব OZO টেকনোলজি ব্যবহার করে যেটি খুব হাই ডেফিনেশনের শব্দ ধারন করতে সক্ষম যার কারনে আপনি যখন ধারনকৃত ভিডিও দেখবেন তখন আপনার ভিডিওকৃত ফুটেজটি্র প্লেব্যাক  দারুন চমৎকার শব্দের সাথে দেখতে পাবেন। এছাড়াও আরো পাচ্ছেন ভাইব্রেশন, এমপি৩ এবং WAV রিংটোন।

অপারেটিং সিস্টেম এবং ব্যাটারি

যাতে চমৎকার অভিজ্ঞতা হতে পারে আপনার নোকিয়া 7 ফোনটি ব্যবহার করে সে কারনে এতে এন্ড্রয়েড ৭.১.১ নুগাট অপারেটিং সিস্টেমে দেয়া হয়েছে যেটা পরবর্তীতে এন্ড্রয়েড ৮.০ (অরিও) তে আপগ্রেড করা যাবে।

ব্যাটারির কথা বলি এবার, এটায় ৩০০০ এমএএইচ লি-পলিমার নন রিমুভেবল ব্যাটারি দেয়া হয়েছে যেটা ফার্স্ট চারজিং(৯ভি/২এ) সাপোর্ট করবে। এর চিপসেট ভালো হবার কারনে ব্যটারি বেশ ভালোই সাপোর্ট দিবে। ৩জি কানেকশনে ফোনটি স্ট্যান্ডবাই থাকতে পারবে ১৩০ ঘন্টা পর্যন্ত, ৩জি টকটাইম দিতে পারবে ১৫ পর্যন্ত এবং মিউজিক প্লেব্যাক এর ক্ষেত্রে সাপোর্ট দিতে পারবে ৮৫ ঘন্টা পর্যন্ত।

কানেক্টিভিটি

নোকিয়া 7 ফোনটিতে আপনি সব ধরনের আধুনিক কানেক্টিভিটি অপশনই পাচ্ছেন যেমনঃ ইউএসবি টাইপ সি পোর্ট, এনএফসি, ওটিজি, ৩.৫ মিলি মিটার হেডফোন জ্যাক, ডুয়াল ন্যানো সিম সাপোর্ট, এবং 4G LTE/ VOLTE।

সেন্সর

বর্তমানের অন্যান্য স্মার্ট ফোনের মত নোকিয়া 7 ফোনটিতেও রয়েছে বেশ কিছু সেন্সর ফিচার যেমনঃ কম্পাস/ম্যাগনেটোমিটার, প্রক্সিমিটি সেন্সর, এম্বিয়েন্ট লাইট সেন্সর, , এক্সেলেরোমিটার, গাইরোস্কোপ ইত্যাদি আর এই সব কিছুর সাথে ফিঙ্গার প্রিন্ট সেন্সর তো থাকছেই।

Comments

comments

Join the discussion

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।