নুতন মোটরবাইক কেনার ১0 টি অত্যাবশ্যক টিপস

আজকাল পাবলিক পরিবহনে যাতায়াত সত্যি অসাধ্য হয়ে দাঁড়িয়েছে। রাস্তার ট্রাফিক অবস্থা খারাপ হওয়ার সাথে সাথে পাবলিক পরিবহন আজকাল অনেক বেশী সময় নেয় যেকোনো জায়গায় পৌঁছাতে। তাই অনেকেই আজকাল নিজস্ব পরিবহনের ব্যবস্থা করে নিচ্ছেন তা কষ্ট করে হলেও। আর ব্যক্তিগত পরিবহনের কথা উঠলেই প্রথমে আসে মোটর সাইকেলের কথা যা আমাদের মতো মধ্যবিত্তের দেশগুলিতে অনেকের প্রিয় পরিবহন।তাই আসুন জানা যাক, নুতন মোটরবাইক কেনার ১0 টি অত্যাবশ্যক টিপস-

মোটর সাইকেল কেনার আগে, আপনি মোটর সাইকেল সংক্রান্ত প্রয়োজনীয় মোটর বাইক কেনার পরামর্শ বা নির্দেশিকা ভালোভাবে জেনে নিন

কেন আপনি মোটর সাইকেল কিনবেন-

সবার আগে আপনি আপনার প্রয়োজনীয়তার মাত্রাটা বোঝার চেষ্টা করুন। আপনি আপনার বাইক নিয়ে কি শুধু অফিসে যাতায়াত করতে চান নাকি পরিবারের সবাইকে নিয়ে যাতায়াত করার কোন পরিকল্পনা আছে কিংবা কাছাকাছি দুরত্তে চালাবেন নাকি বেশী দূরের পথ পাড়ি দিতে হবে-এসব বিষয় ভাবুন। শুদু অফিস যাতায়াত এর জন্য ৮০ বা ১০০ সিসির বাইকই যথেষ্ট । আবার বেশী দূরের যাতায়াতের জন্য ১৫০সিসির মোটর সাইকেল কেনার কথা ভাবতে পারেন সময় বাঁচিয়ে দ্রুত পৌঁছানোর জন্য।

ফ্যামিলি নিয়ে চড়তে চাইলে একটু বড় সাইজের বাইক কিনতে হবে। তাই আগে নিজের প্রয়োজন পরিমাপ করুন তারপর মোটর বাইক কেনার প্লান করুন।

আপনিও আমাদের সাথে এখন একমত যে আপনার প্রয়োজনের ধরন অনুযায়ী আপনার বাইকটি ঠিক করতে হবে। বাজারে বিভিন্ন ধরণের মোটর বাইক রয়েছে যেমন যেমনঃ স্পোটস বাইক, সুপার মোটোর রেসিং বাইক, স্কুটার, সুপারস্কুটার, নরমাল মোটর বাইক। তবে আমাদের তরুণরা মাসল টাইপ স্পোর্টস্ মোটর বাইক বেশী পছন্দ করে ।

কোন বাইক কিনবেন -নুতন নাকি পুরনো

আপনার মোটর বাইক কেনার আগে তার দামটি ভালোভাবে জেনে নিন। আপনি কোন মোটর বাইক কিনবেন-নুতন না পুরাতন তা নির্ভর করে আপনার বাজেটের উপর। আপনি যদি কম দামের মধ্যে আপনার মোটর বাইকটি কিনতে চান তবে পুরনো বাইক খুঁজে দেখতে পারেন । তবে কেনার আগে অবশ্যই টেস্ট ড্রাইভ করে নিবেন। আজকাল অনলাইনে (www.bikroy.com, www.cellbazaar.com etc) অনেক পুরনো মোটর বাইক বেচাকেনা হয়। আপনি গ্যারেজগুলোতে খোঁজ নিয়ে ও দেখতে পারেন। আপনার পছন্দের পুরনো বাইক ও পেতে পারেন।

আর যদি নুতন গাড়ি কিনতে চান তবে আগে ব্র্যান্ড ঠিক করে নিতে পারেন। খোঁজ খবর করে বাজেট এর মধ্যে পছন্দ করে কিনতে পারেন আপনার স্বপ্নের বাইকটি ।

আপনার শরীরের আকৃতির কথা মাথায় রাখুন

মোটর বাইক কেনার একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলে আপনার শরীরের সাইজের সাথে মানানসই বাইক কেনা। যেমন একটু মোটা ও খাটো কারও উচিৎ হবে না বড় ,উঁচু ও ওজন বেশী যেমন হিরো হাংককিং বা ইয়ামাহা এফজেড কেনা । শরীরের সাথে সামঞ্জস্যতা মেনে আপনি যদি বাইক না কেনেন তবে তা আপনার দুর্ঘটনার ঝুকি বাড়াবে আবার শরীরের বিভিন্ন অংশে দীর্ঘমেয়াদী  ব্যথার কারণ হতে পারে ।

বাইকের সিট টি আপনার জন্য আরামদায়ক তো-

মোটর বাইক কেনার আগে বাইকটির সিটে বসে পরীক্ষা করে দেখবেন সেটি আপনার জন্য আরামদায়ক কিনা। আজকাল অনেক মোটর বাইকের সিট এর উচ্চতা এ্যডজাস্ট করা যায়। এ্যডজাস্ট করার পর দেখবেন আপনি বসে আরাম পাচ্ছেন কিনা। আপনার শরীরের গঠনের সাথে মানানসই এবং বাইক এ বসার পর আপনার হাঁটু ও পায়ের অবস্থান দেখুন তা যথাযথ আছে কিনা । আপনি আপনার বাইকটি থেমে থাকা অবস্থায় যদি আপনার পায়ের পাতা সমান ভাবে মাটিতে রাখতে পারেন তবে সেটা আপনার জন্য উপযুক্ত সাইজের বাইক বলে ধরে নিতে পারেন ।

আপনার বাজেটের দিকে নজর দিন-

আপনার যেকোনো শখের জিনিসের প্রধান উপজীব্য হল আপনার বাজেট। আপনার হয়ত অনেক দামি মোটর সাইকেল পছন্দ-কিন্তু ভেবে দেখুন সেই পরিমান অর্থ আপনি মোটর সাইকেল কিনতে খরচ করবেন কিনা। আপনি এক লাখ হতে তিন লাখ টাকার মধ্যে মোটর সাইকেল কিনতে পারেন-আপনার  ইচ্ছামত। আবার বাজেটে যদি সমস্যা হয় তবে ভেবে দেখতে পারেন বাইকটি এককালীন নগদ টাকায় কিনবেন নাকি কিস্তিতে নিবেন। আপনার সাধ্য অনুযায়ী বিবেচনা করুন বিষয়গুলি ।

তেলের খরচের কথা ভুল লে চলবে না-

মোটর সাইকেলের জ্বালানি হল তেল যা যথেষ্ট খরচান্ত ব্যাপার । তাই তেল সাশ্রয়ী মোটর সাইকেলই সবাই কিনতে চান। এ বিষয়ে ভারত হতে আমদানিকৃত মোটর সাইকেল গুলির অনেক চাহদা রয়েছে। উল্লখ যোগ্য কিছু ব্র্যান্ড হল যেমন—হিরো, বাজাজ, মাহিন্দ্রা বা জাপানি সুজুকি ব্রান্ডের কথাও ভেবে দেখা যায়। ১৫০ সিসির দ্রুত গতির বাইক গুলি তেল খরচও বেশী।  আপনার বাজেট ভাল হলে ইয়ামাহা বা ১৫০ সিসির মোটর বাইক কিনে চালাতে পারেন। বাংলাদেশী অনেক প্রতিষ্ঠান যেমন রানার বা ওয়ালটন আজকাল ৮০ ও ১০০ সিসির মোটর বাইক তৈরি করছে । এসব আমাদের দেশীয় বাজারে কিস্তিতেও বিক্রি করা হয়। বাজেট সমস্যা আপনার পছন্দকে আর বাধাগ্রস্ত করতে পারবে না ।

তবে আমাদের দেশের এই বাইক গুলিতে তেল খরচ একটু বেশী হবে। তাই যেকোনো বাইক কেনার সময় অবশ্যই বাইকটির মাইলেজ এর হিসাব জেনে নিন এবং বুঝে নিন।আপনার যদি উপায় জানা থাকে তবে আপনি খুব সহজেই আপনার মোটরসাইকেল বা গাড়ী এর মাইলেজ হিসাব (প্রতি লিটারে কত কিলোমিটার চলে) করতে পারবেন ।

                          মাইলেজের হিসাব বুজতে আপনি আরো পড়তে পারেন, আপনার মোটর সাইকেলের যথাযথ মাইলেজ পাওয়ার কিছু সহজ কিন্তু 10 টি কার্যকরী টিপস

বুঝুন বাইকটি বাতাস নিরোধক নাকি সামনে খোলা –

এখনকার মোটর বাইকগুলিতে বাতাস নিরোধক স্বচ্চ প্লাস্টিক তেমন চোখে পড়ে না তবে এটি জরুরী। এটি আপনাকে ধুলা বালি থেকে অনেক বেশী রক্ষা করে।

আপনার বাইকটি আপনার ব্যাগেজ পরিবহনে কতটা স্বাচ্ছন্দ্যময়-

মোটর সাইকেল কোন কোন পরিবারের জন্য অনেক কিছু। এটাতে করে আপনি অফিসে যা্ন, আপনার ছেলেস্কুলে যায় , আপনি শপিং এ জান, এমনকি কাঁচাবাজারও করেন। তাই মোটর বাইক কেনার সময় লক্ষ্য রাখতে হবে এটি মালামাল পরিবহনে কতটা উপযুক্ত ও এই ব্যবস্থা রয়েছে কিনা অর্থাৎ ব্যাগেজ ফ্রেন্ডলী কিনা।

কতদিন আপনি বাইকটিকে রাখতে চান-

আপনার মোটর বাইকটির স্থায়িত্ব কতদিন হবে বা আপনি কতদিন একটি বাইক চালাতে চান তা একান্তই আপনার ভাবনা। অনেকেই আছে ২ না ৩ বছর পর পর মোটর বাইক পরিবর্তন করেন। এসব ক্ষেত্রে আপনি পুরনো বাইক কিনতে পারেন। আবার কেউ কেউ আছে যারা নুতন বাইক কিনে বেশিদিন চালাতে চান। তাই আপনি অভিজ্ঞ কারও কাছে যারা অনেক দিন ধরে মোটর বাইক চালাচ্ছেন তাদের কাছে ভাল পরামর্শ চাইতে পারেন একইসাথে নিজেও বাজার ঘুরে দেখে নিন মোটর বাইকের বাজার দর ।

বাইকটি কতটা স্টাইলিস-

মোটর বাইক কিন্তু আপনি প্রতি বছর বছর কিনবেন না। আর একটি সুন্দর দেখতে বাইকের জন্য মেনটিনেন্স একটু বেশী হলেও মেনে নেয়া যায় -তাই নয় কি? তাই একটু সময় নিয়ে একটু কষ্ট করে হলেও একেবারে মনে মতো স্টাইলিস মোটর বাইক কেনাটা আমার কাছে মনে হয় বেশী যুক্তিযুক্ত ।

                                         সর্বশেষে আমি বলতে চাই, মোটর বাইকের অপর নাম গতি। আপনার গতিকে সুন্দর আর আনন্দময় করতে নিরাপদ থাকাটা জরুরী। আর এই নিরাপত্তার জন্যই বাইক কেনা আর বাইক চালানোর আগে এর মাইলেজ, এর বিভিন্ন যন্ত্রাংশের গঠন, চেইন , ব্রেক এর যথাযথ কার্যক্ষমতা বা অন্য কন অসামাঞ্জস্যতা চোখে পরলে ভালভাবে ব্যাপারটি বুজে নিয়ে তারপর বাইক কিনুন, বাজার ঘুরে বাইকের দাম জানুন , প্রয়োজনীয় কাগজ পত্র চেয়ে নিন, নিজে ড্রাইভিং লাইসেন্সে করুন আর প্রচুর অনুশীলনের পর রাস্তায় মোটর বাইক নিয়ে চালাতে শুরু করুন । নিজে নিরাপদ থাকুন আপনার পাশের চালককেও নিরাপদে রাখুন।

Comments

comments

Join the discussion

2 thoughts on “নুতন মোটরবাইক কেনার ১0 টি অত্যাবশ্যক টিপস

  1. আসসালামু আলাইকুম,

    খুব সুন্দর একটি পোস্ট। এমন একটি পোস্টের জন্য অনেক ধন্যবাদ। বাজাজের যেকোন বাইাক সম্পর্কে জানার জন্য আমাদের (বাজাজ পয়েন্ট, ডিলার- উত্তরা মোটর্স লি: ঢাকা) অফিসিয়াল পেইজে লাইক দিয়ে আপডেট থাকুন। আমরা চেষ্টা করি সর্বশেষ সঠিক সংবাদ দেওয়ার জন্য।

    আমাদের পেইজ- https://www.facebook.com/bajajpoint.dhk
    আমাদের ওয়েব সাইট- https://uttaramotorsltdbajajpoint.wordpress.com/

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।