কিভাবে হবেন একজন দক্ষ মোটর বাইক চালক

কিভাবে হবেন একজন দক্ষ মোটর বাইক চালক

মোটর বাইক আপনার অর্থ ও সময় দুটোই সেভ করে। আপনি কিভাবে একজন দক্ষ মোটর বাইক চালক হয়ে উঠবেন এবং মোটর বাইক চালানোর নিয়ম  ভাল ভাবে রপ্ত করবেন, সেজন্যই আমাদের এই সহজ কিছু টিপস ।

%e0%a6%95%e0%a6%bf%e0%a6%ad%e0%a6%be%e0%a6%ac%e0%a7%87-%e0%a6%b9%e0%a6%ac%e0%a7%87%e0%a6%a8-%e0%a6%8f%e0%a6%95%e0%a6%9c%e0%a6%a8-%e0%a6%a6%e0%a6%95%e0%a7%8d%e0%a6%b7-%e0%a6%ae%e0%a7%8b%e0%a6%9f

গিয়ার আপ

মোটর বাইক চালানোর সময় আপনার কি কি পরিধান করা উচিৎ

আপনার যদি বাইক নিয়ে অফিস করতে হয় তাহলে আবহাওয়া যেমনই হোক না কেন আপনাকে যেতে হবে। আর এই ভিন্ন ভিন্ন রকমের আবহাওয়ার জন্য আপনার সকল ধরণের গিয়ার থাকাটা জরুরী।  আর বাইক চালানোর জন্য আলাদা পোশাক অবশ্যই রাখবেন যা সব সময় চলে ও আপনাকে নিরাপদ  রাখে।

এছাড়া শীতের দিনের জন্য  গরম গ্রিপ, গরম গ্লভস , গরম নেক ওয়ারমার  আপনার জরুরী যা সাথে রাখবেন আর বাইক চালানোর সময় পরিধান করবেন।

আগেই পরিকল্পনা করুন আর সে মোতাবেক বাইক কিনুন

নুতন মোটরবাইক কেনার ১0 টি অত্যাবশ্যক টিপস

আপনি যদি একই পথে নিয়মিত বাইক চালাবেন বলে পরিকল্পনা করেন তবে মোটর বাইক চালানকে সহজ করে তুলুন। বাইকে সব সময় একটি ব্যাগে দরকারী জিনিস পত্র রাখুন  যাতে প্রয়োজনে আপনার প্রয়োজন মেটাতে পারেন আর বাইক চালনোও আপনার জন্য সস্তি ও শান্তির হয়।

আর যদি আবারো নতুন মোটর বাইক কিনার ইচ্ছা থাকে তাহলে মোটর বাইক রিভিউ পড়বেন।

সব সময় সতর্ক থাকুন

বাইক চালানোর সময়  বা মোটর বাইকিং এর সবচেয়ে জরুরী হল, সতর্ক থাকা এবং সব সময় সতর্ক থাকা। এক মুহূর্তের অসতর্কতা আপনাকে অনেক বড় বিপদের দিকে ঢেলে দিতে পারে, হতে পারে আপনার জীবন মরন সমস্যা। মোটরসাইকেল চালানোর নিয়ম এবং মোটরসাইকেল আইন  মেনে চুলুন।

তাই জীবনের ঝুকি নিবেন না এবং সব সময় নিজেকে সাবধান রাখুন।

Read More [বাংলাদেশে জনপ্রিয় ১০ টি ১০০ সিসি মোটর বাইক]

Read More [মোটরসাইকেল ধৌত করার সর্বোত্তম ১০টি টিপস]।

 

আপনার জন্য সঠিক বাইকটি চালান

Read More [মোটরসাইকেল নির্বাচন করবেন কীভাবে: নতুন চালকদের মোটরসাইকেল নির্বাচন]

 

আপনি কি  বিভিন্ন রকমের আবহাওয়ার মধ্যে যানজোটের রাস্তায় নিয়মিত বাইক চালান? তাই যদি হয় তবে আপনার দরকার আরামদায়ক, বাস্তব সম্মত আর সাশ্রয়ী মানের বাইক।একটি কর্ম দক্ষ বাইক আপনার শরীর, লাগেজ, খারাপ আবহাওয়ার সব কিছুর জন্য কার্যকরী ভাবে কাজ করবে এমনকি আপনার  দৃষ্টি ও বাইকের নিয়ন্ত্রণও সহজ হবে।

 নিরাপত্তা ফিচার যেমন এ বি এস  বা  ট্রাকসান  এর দিকেও নজর দিতে হবে।

আপনি যখন বাইক নিয়ে নিয়মিত যাতায়াত করবেন তখন বাইক চালানোর খরচও হিসেব করতে হবে যেমন  ফুয়েল খরচ, টায়ারের টেকসই, বাইক সার্ভিসিং করানো এসব কিছু যাতে সাশ্রয়ী হয় তা খেয়াল করতে হবে।

আরও কিছু সহজ টিপস

মোটরসাইকেল চালানোর কিছু প্রয়োজনীয় পরামর্শ,নূতনদের জন্য

নিয়মিত বাইকে চলাচল করলে একটি অতিরিক্ত জ্যাকেট আপনার অফিসে রাখতে পারে। সব সময় যদি জ্যাকেট আনতে ভুলে যান  বা হটাৎ বাইরে লাঞ্চ খেতে গেলে এই জ্যাকেট ব্যবহার করতে পারবেন।

বাইকের টায়ার ও টায়ার প্রেসার নিয়মিত চেক করবেন। নিয়মিত বাইক চালক হতে এটা জরুরী।

অতিরিক্ত গ্লভস রাখবেন আপনার কাজের জায়গায় । এক জোড়া গ্লভস ভিজে গেলে অন্য জোড়া ব্যবহার করতে পারবেন।

আপনার অফিসের জুতা অফিসে রাখুন । মোটর বাইক চালানোর নিয়ম জানলেই হবেনা, সাথে অন্য অনেক বিষয় নিয়ে ও আপনাকে নিজের জন্য ভাবতে হবে। যেমন, বাইক চালিয়ে এলে বুট পড়ে চালাবেন আর অফিসে এসে খুলে ফেলে অফিসিয়াল জুতা পড়বেন। এতে অফিসের জুতা সুন্দর  ভাল থাকবে আবার বাইক চালানোও নিরাপদ হবে।

গ্যাস ক্যাপ খোলার সময় বা  প্যাড লক  আনলক করার সময় গ্লভস পরে  তারপর করবেন। আপনার হাত ঠান্ডা থাকলে আপনি বাইক চালানোর সময় আর হাত গরম হবে না।

হেলমেট কেনার সময় ফোটোক্রমাটিক লেন্সে যুক্ত হেলমেট কিনবেন যাতে শীতের সময় পাল্টাতে না হয়।

আপনার নিয়মিত রাস্তায় কোথায় গ্যাস স্টেশান আছে তা ভালভাবে জেনে নিন। পরে আপনার ফুয়েল শেষ হলে কিভাবে ফুয়েল নিবেন যা আগেভাগেই পরিকল্পনা করে রাখুন।

যে পথে বাইক চালান সে পথটিকে আনন্দময় করে তুলুন। লম্বা পথের পরিবর্তে ছোট পথ দিয়ে আপনার গন্তব্যে যাবার  চেষ্টা করুন তবে ভাল রাস্তাটাই সবসময় বেছে নিবে।

আপনার অফিসে যদি  বাইক পারকিং না থাকে আপনার অফিস বস বা বিল্ডিং ম্যানেজমেন্টের সাথে কথা বলুন কোথায় আপনার বাইক নিরাপদে পার্ক করা যায়। কারণ বাইক  পার্ক করা নিয়ে কোন ঝামেলা হলে আপনি যাতে সহজেই আপনার বস বা বিল্ডিং  ম্যানেজমেন্টের সাথে তাদের যোগাযোগ করিয়ে দিতে পারেন।

  ওভারটেক করার খেলায় মেতে উঠবেন না। মোটরসাইকেল ড্রাইভিং লাইসেন্স সাথে রাখুন .

বাইক পার্ক করার পর বাইক যাতে চুরি না হয় এজন্য চেইন দিয়ে লক করে রাখুন । মোটর সাইকেল রাখার জায়গা দেয়ার জন্য অফিসে আলোচনা করুন। জনমত গরে তুলুন কারণ এতে আপনার ও অফিসের সবার সময় ও এনার্জি দুটোই সেভ হয়।

কখন মোটর বাইক চালাবেন আর কখন চালাবেন না সে বিষয়ে আগাম পরিকল্পনা করুন। আবাহাওয়ার পূর্বাভাস নজরে রাখুন। নিরাপদে অভিজ্ঞ মোটর বাইক চালক হয়ে উঠুন।

মোটর বাইক রিভিউ পড়তে পারেন  bike.com.bd সাথে জেনে নিন মোটর বাইকের দাম

মোটরবাইক লাইসেন্স এবং মোটরসাইকেল নিবন্ধন ফি পুনঃনির্ধারণ

মোটর সাইকেল ড্রাইভিং লাইসেন্স কিভাবে করবেন? 

ড্রাইভিং লাইসেন্স করার উপায়

ড্রাইভিং লাইসেন্সের লিখিত পরীক্ষার স্ট্যান্ডার্ড প্রশ্ন ব্যাংক ও উত্তর

মোটর বাইকিং And ড্রাইভিং A টু Z [পর্ব-০১] :: সূচনা, বিভিন্ন মটরসাইকেল, কেনার সময় লক্ষণীয় ও বাইক ইঞ্জিন

 

Comments

comments

Join the discussion

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।